শোকাবহ আগস্ট মাসের প্রথম দিন আজ মঙ্গলবার। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করা হয়েছিল। ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের সমাবেশে গ্রেনেড হামলা চালিয়ে হত্যা করা হয়েছিল বহু নেতাকর্মীকে। ফলে এ মাসটি এ দেশে বড়ই শোকের। ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস পালন করা হবে রাষ্ট্রীয়ভাবে। তবে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এবং এর সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলো শোকাবহ এ মাসজুড়েই নানা কর্মসূচি পালন করবে।

উল্লেখযোগ্য কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে, আজ বিকেল সাড়ে ৩টায় বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে কৃষক লীগের আয়োজনে রক্তদান কর্মসূচি। এতে প্রধান অতিথি থাকবেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর আগে যুবলীগের আয়োজনে সকাল ১০টায় শিল্পকলা একাডেমির তৃতীয় তলায় ৬ নম্বর গ্যালারিতে মাসব্যাপী বঙ্গবন্ধুর জীবনভিত্তিক সংবাদচিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। ঢাকা মহানগর উত্তর তাঁতী লীগের আয়োজনে দুপুর দেড়টায় বনানী কবরস্থানে কোরআন খতম ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে।

৩ আগস্ট বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় গুলশান ২ নম্বর সার্কেলে বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনিদের দেশে ফিরিয়ে আনার দাবিতে মানববন্ধন করবে স্বেচ্ছাসেবক লীগ। ৪ আগস্ট শুক্রবার শহীদ শেখ কামালের জন্মদিন উপলক্ষে ছাত্রলীগের আয়োজনে হবে আলোচনাসভা। ৫ আগস্ট সকাল ৮টায় ধানমণ্ডি আবাহনী ক্লাব প্রাঙ্গণে শেখ কামালের জন্মদিন উপলক্ষে শ্রদ্ধার্ঘয অপর্ণ, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল হবে।

বঙ্গবন্ধুর খুনিদের দ্রুত দেশে ফিরিয়ে আনার দাবিতে ছাত্রলীগের উদ্যোগে ৬ আগস্ট সব বিশ্ববিদ্যালয়, জেলা, উপজেলা শাখা মানববন্ধন ও স্মারকলিপি পেশ করবে।

বঙ্গমাতা শহীদ ফজিলাতুননেসা মুজিবের জন্মদিন উপলক্ষে ৭ আগস্ট সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় মহিলা শ্রমিক লীগ বনানী কবরস্থানের সামনে মোমবাতি প্রজ্বালন করবে।

ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগসহ সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলোর আয়োজনে ৮ আগস্ট সকাল সাড়ে ৮টায় বনানী কবরস্থানে বঙ্গমাতা শহীদ ফজিলাতুননেসা মুজিবের জন্মদিন উপলক্ষে শ্রদ্ধার্ঘয অর্পণ, কোরআনখানি, মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের কর্মসূচি রয়েছে। সকাল ১১টায় ধানমণ্ডি ৩২ নম্বরে স্বেচ্ছাসেবক লীগের উদ্যোগে আলোচনাসভা হবে।

বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের উদ্যোগে ১০ আগস্ট বিকেল ৫টায় সুপ্রিম কোর্ট মিলনায়তনে হবে আলোচনাসভা। যুব মহিলা লীগের উদ্যোগে ১২ আগস্ট বিকেল ৩টায় কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে হবে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনাসভা।

১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে সূর্য উদয় ক্ষণে বঙ্গবন্ধু ভবন এবং কেন্দ্রীয় কার্যালয়সহ সংগঠনের সব স্তরের কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণ এবং কালো পতাকা উত্তোলন করা হবে। সকাল সাড়ে ৬টায় ধানমণ্ডিতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক স্মৃতিবিজড়িত বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ। সকাল সাড়ে ৭টায় বনানী কবরস্থানে ১৫ আগস্টের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধার্ঘয নিবেদন, মাজার জিয়ারত, ফাতেহা পাঠ, মোনাজাত ও মিলাদ মাহফিল হবে।

সকাল ১০টায় টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধার্ঘয নিবেদন, ফাতেহা পাঠ, মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের কর্মসূচি রয়েছে। টুঙ্গিপাড়ার কর্মসূচিতে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের পক্ষে জাতীয় নেতারা উপস্থিত থাকবেন। বাদ জোহর দেশের সব মসজিদে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল হবে। সুবিধামতো সময়ে মন্দির, প্যাগোডা, গির্জা, উপাসনালয়ে বিশেষ প্রার্থনার আয়োজন থাকবে। দুপুরে অসচ্ছল, এতিম ও দুস্থ মানুষের মধ্যে করা হবে খাদ্য বিতরণ। বাদ আসর বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল হবে।

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ১৬ আগস্ট আওয়ামী লীগের উদ্যোগে হবে আলোচনাসভা। ২০০৫ সালে সারা দেশে সিরিজ বোমা হামলাকারীদের বিচার দাবিতে স্বেচ্ছাসেবক লীগের উদ্যোগে ১৭ আগস্ট জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন করা হবে।

স/এষ্

print

Facebook Comments

এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

আরও পড়ুন