কোপা দেল’রের ফাইনাল প্রায় নিশ্চিত বার্সেলোনার। ক্যাম্প ন্যুয়ে হাজির হওয়া ৬৭৭৩৪ দর্শক বার্সেলোনা সাফল্যে উল্লসিত। রেফারিও শেষ বাঁশি বাজাবেন মিনিট পাঁচেক পর। উৎসবের মঞ্চ পুরো প্রস্তুত। কিন্তু হঠাৎ বার্সেলোনা শিবিরে বিষাদের ছায়া। স্টেডিয়াম স্তব্ধ। রেফারি জিসাস গিল পকেট থেকে হলুদ কার্ড বের করে দ্বিতীয়বারের মতো লুইস সুয়ারেজকে দেখালেন। পরক্ষণে দেখালেন লাল কার্ড। লাল কার্ডে ম্যাচের ৮৭ মিনিটে মাঠ ছাড়েন বার্সেলোনার হয়ে এ মৌসুমে ২১ গোল করা সুয়ারেজ।

দুর্ভাগ্য বার্সার। কোপা দেলরের ২৯তম শিরোপা ঘরে তোলার লড়াইয়ে বার্সেলোনা পাবে না সুয়েরেজকে। সুয়ারেজ ছাড়াও মঙ্গলবার রাতে ক্যাম্প ন্যুয়ে লাল কার্ড দেখেছেন আরও দুই ফুটবলার। সুয়ারেজের সতীর্থ সার্জি রবের্তো ও অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদে ইয়ানিক ফেরিয়া ফারাস্কো লাল কার্ড হজম করেছেন। তিন লাল কার্ড ও আট হলুদ কার্ডের ম্যাচ ১-১ গোলে ড্র হয়েছে।

দুই লেগ মিলিয়ে ৩-২ গোল ব্যবধানে জিতে ফাইনাল নিশ্চিত করেছে বার্সেলোনা। ম্যাচে দুই দলের খেলোয়াড়রা ছিলেন আক্রমণাত্মক। বিশেষ করে শেষ দিকে দুই দলের খেলোয়াড়রা যেন পাগল হয়ে উঠেছিলেন! বার্সেলোনার আর্মব্র্যান্ড পরা আন্দ্রে ইনিয়েস্তাও বিষয়টি স্বীকার করেন। ম্যাচ শেষে ইনিয়েস্তা বলেন, ‘প্রত্যেকেই শেষ দিকে এসে পাগল হয়ে গিয়েছিল। কঠিন ম্যাচ হয়েছে, হাড্ডাহাড্ডি লড়াইও হয়েছে। এ ম্যাচ থেকে প্রত্যাশাও বেশি ছিল। কিন্তু এভাবে মেজাজ হারানো কোনোভাবে উচিত হয়নি।’

ম্যাচ নিয়ে ইনিয়েস্তা বলেন,‘অ্যাটলেটিকো প্রথম ৪৫ মিনিট দারুণ নিয়ন্ত্রণ নিয়েছিল। আমরা শুরুতে বলের উপর কন্ট্রোল রাখতে পারিনি। কিন্তু ফিরে এসে প্রতিরোধ গড়েছি। এখন আমরা আত্মবিশ্বাসী। এ দলটি দলগতভাবে সাফল্য পাচ্ছে। আশা করছি শিরোপার লড়াইয়েও ভালো করব। এটা দেখে ভালো লাগছে যে ধীরে ধীরে খেলোয়াড়রা স্বরূপে ফিরে আসছে।’

স/শা

print

Facebook Comments

এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

আরও পড়ুন

Power by

Download Free AZ | Free Wordpress Themes