আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর সদস্যদের দেশের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বাহিনীর সদস্যদের সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ ও মাদকের বিরুদ্ধে সচেতনতা তৈরির তাগিদ দেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস কেবল বাংলাদেশে নয়, পুরো বিশ্বের জন্যই একটি সমস্যা হয়ে দেখা দিয়েছে।

“আমাদের ছেলেমেয়েরা যাতে মাদকাসক্তিতে না জড়ায়, জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসের সঙ্গে না জড়ায়; এ ব্যাপারে আপনাদেরও ভূমিকা রাখতে হবে। মানুষের মধ্যে সচেতসনতা সৃষ্টি করা এবং এটা প্রতিরোধ করে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখায় বিশেষ ভূমিকা আপনারা রাখবেন, সেটাই আমরা চাই।’’

রোববার গাজীপুরের সফিপুরে আনসার-ভিডিপি একাডেমিতে বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর ৩৭তম জাতীয় সমাবেশে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, “আমরা কারও কাছে মাথা নিচু করে চলব না, মাথা উঁচু করে চলব।তাই আমাদের নিজের পায়ে দাঁড়াতে হবে। পরমুখাপেক্ষী হয়ে নয়।”

এই বাহিনীর সদস্যদের প্রশিক্ষণের ওপর জোর দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “আপনাদের প্রশিক্ষণ শুধু নিজেদের না, গ্রামের মানুষকে উদ্বুদ্ধ করতে পারে। নিজের পায়ে দাঁড়ানোর প্রশিক্ষণ দিয়ে তাদেরকেও আপনারা আত্মমর্যাদাশীল হিসাবে গড়ে তুলতে পারেন।”

প্রধানমন্ত্রী জানান, একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পে আনসার-ভিডিপিকে সম্পৃক্ত করতে ইতোমধ্যে নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

কর্মমুখী ও কারিগরি প্রশিক্ষণের মাধ্যমে যুবসম্পদকে কর্মদক্ষ করে গড়ে তোলাকে এই বাহিনীর একটি ‘গুরুত্বপূর্ণ কাজ’ হিসাবে বর্ণনা করেন প্রধানমন্ত্রী।

সরকারপ্রধান বলেন, ‘‘এ বাহিনীর সদস্যরা বর্তমানে যুগের চাহিদার সঙ্গে তাল মিলিয়ে মানসম্মত প্রশিক্ষণ গ্রহণ করছে এবং কর্মসংস্থানের মাধ্যমে দেশের বেকার সমস্যার সমাধানে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে।’’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর কর্মকর্তারা বর্তমানে সেনাবাহিনীর বিভিন্ন প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানসহ দেশে-বিদেশে উচ্চতর প্রশিক্ষণে অংশ নিচ্ছে।

এছাড়া আয় বৃদ্ধিমূলক কার্যক্রমের মাধ্যমে স্বনির্ভরতা অর্জনের ক্ষেত্রে এ বাহিনী সারাদেশে এক বিশাল পরিবর্তন সূচনা করেছে।

আনসার ও ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংক প্রতিষ্ঠার কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রশিক্ষণ, দক্ষতা উন্নয়ন ও ঋণ গ্রহণের সম্মিলনের মাধ্যমে দারিদ্র্য দূরীকরণে এ ব্যাংক কাজ করছে।

আনসার ও ভিডিপি একাডেমিতে পৌঁছানোর পর প্রধানমন্ত্রী প্যারেড পরিদর্শন করেন।

আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মিজানুর রহসান খান এবং প্যারেড কমান্ডান্ট আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর পরিচালক মোহাম্মদ ফখরুল ইসলাম এ সময় সরকারপ্রধানের সঙ্গে ছিলেন।

কুচকাওয়াজের অভিবাদন গ্রহণের পর প্রধানমন্ত্রী সাহসিকতা ও সেবামূলক কাজের জন্য আনসার সদস্যদের মধ্যে পদক বিতরণ করেন।

স/শা

print

Facebook Comments

এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

আরও পড়ুন