যে শহরে থাকলেই মিলবে, কাড়ি-কাড়ি টাকা!

চমক ডেস্ক : ভাবুন তো একটু- ফিটফাট, ঝা চকচকে এক শহরে থাকতে শুরু করলেন। আর পুরস্কার হিসেবে পেয়ে গেলেন বাড়ি-গাড়ি, চাকরিসহ কাড়ি কাড়ি টাকা। পাগলের প্রলাপ মনে হচ্ছে? উন্নত জীবনের আশায় হাজার হাজার মানুষ যখন ভূমধ্যসাগরে লাশ হচ্ছে, তখন এসব কথাকে পাগলের বকবকানি মনে হওয়াটাই স্বাভাবিক।

কিন্তু সারা বিশ্বে আসলেই এমন কিছু শহর আছে যেখানে স্থায়ীভাবে বাস করলেই মিলবে নানা ধরণের লোভনীয় সুযোগ-সুবিধা। এখানে এমন কিছু শহরের কথাই জানানো হলো-

নিউ হ্যাভেন, যুক্তরাষ্ট্র
যুক্তরাষ্ট্রের এই শহরে বিশ্বের অন্যতম সেরা বিশ্ববিদ্যালয় ইয়েল ইউনিভার্সিটির অবস্থান। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের কারণেও মানুষকে আকৃষ্ট করে এই শহর। কিন্তু সাম্প্রতিক বছরগুলোতে শহরটির জনসংখ্যা কমেই চলেছে। এ অবস্থা বদলাতেই একটি প্রজেক্ট হাতে নিয়েছে নিউ হ্যাভেন শহর কর্তৃপক্ষ। `দ্য রি-নিউ হ্যাভেন প্রোগ্রাম` নামের এই প্রজেক্টের মূল কথা হলো- কেউ যদি অন্য কোনো শহর ছেড়ে এই শহরে কাজের জন্য চলে আসে তবে তাকে দেওয়া হবে ৮০ হাজার ডলারের ঋণ সুবিধা। এই ৮০ হাজার ডলারের মধ্যে রয়েছে নিউ হ্যাভেনে একটি বাড়ি কেনার জন্য ১০ হাজার ডলার সুদহীন লোন। সেই বাড়িতে উন্নত এনার্জি-সেভিং আপগ্রেডের জন্য আরও ৩০ হাজার ডলার লোন। যদি অন্তত পাঁচ বছর এই শহরে কাটান, তাহলে বাড়ি কিনতে যে ১০ হাজার ডলার লোন নিয়েছিলেন তার পুরোটাই মাফ করে দেওয়া হবে। আর কোনো রকমে যদি ১০ বছর কাটিয়ে দিতে পারেন, তাহলে বাকি ৩০ হাজার ডলার লোনও আপনাকে আর শোধ করতে হবে না।

টুলসা, যুক্তরাষ্ট্র
টুলসার অবস্থাও নিউ হ্যাভেনের মতোই। যুতরাষ্ট্রের এই শহরে মানুষ বাড়াতে `টুলসা রিমোট` নামের প্রকল্প হাতে নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এই প্রকল্পের আওতায় বাইরের শহর থেকে কেউ যদি এই শহরে এসে কাজ করতে চায়, বিনিময়ে তাকে দেওয়া হবে ১০ হাজার মার্কিন ডলার ক্যাশ ইনসেন্টিভ। এখানেই শেষ নয়। ক্যাশ ইনসেন্টিভের সঙ্গে মিলবে কো-ওয়ার্কিং স্পেসের মেম্বারশিপ। সাধারণ মানুষের মেম্বারশিপ পেতে গুনতে হয় এক হাজার আটশো ডলার। কিন্তু নতুন আগতরা এটা পাবেন বিনামূল্যে। পাশাপাশি একটি ফুল-ফার্নিশড অ্যাপার্টমেন্ট ভাড়া নিতে মাসিক ৩০০ ডলার পর্যন্ত ডিসকাউন্টও দেওয়া হবে। এক্ষেত্রে শর্ত শুধু একটাই- অন্তত এক বছর আপনাকে থাকতে হবে এই শহরে।

বাল্টিমোর, যুক্তরাষ্ট্র
বাল্টিমোর শহরে নতুন বাসিন্দা আকৃষ্ট করার জন্য দেওয়া হচ্ছে ৫ হাজার ডলার ঘুষ। `বাল্টিমোর স্কিম` নামের এই অফারের শর্ত একটাই। অন্তত পাঁচ বছর এই শহরে থাকতে রাজি হতে হবে। তাহলেই ৫ হাজার ডলারের মাফযোগ্য লোন দেওয়া হবে। এই লোনের অর্থ দিয়ে শহরের যেকোনো জায়গায় একটি বাড়ি কিনে নিতে পারবেন আপনি। আর যারা এরচেয়েও দীর্ঘমেয়াদে এ শহরে থাকতে চান, তাদের জন্য আছে ১০ হাজার ডলার মূল্যমানের `ভ্যাকেন্ট টু ভ্যালু বুস্টার` প্ল্যান। এই প্ল্যানের মাধ্যমে আপনি যে অর্থ হাতে পাবেন, তা দিয়ে শহরের যেকোনো একটি পূর্ব-ব্যবহৃত প্রপার্টি কিনে নিতে পারবেন, যেটির সংস্কার কাজ প্রয়োজন। এর মাধ্যমে শহর কর্তৃপক্ষ এক ঢিলে দুই পাখি মারছে। দীর্ঘমেয়াদে শহরে বাসিন্দাও মিলছে, অন্যদিকে শহরের পরিত্যক্ত প্রপার্টির সংস্কারও হচ্ছে।

অ্যালবিনেন, সুইজারল্যান্ড
ছবির মতো ছোট্ট সাজানো গোছানো গ্রাম এই অ্যালবিনেন। অথচ সেখানকার স্থায়ী বাসিন্দা মাত্র ২৪০ জন। এদের বেশিরভাগই অনেকেই আবার অন্য শহরে কাজ করে। নিজ গ্রামে এসে মাঝেসাঝে ছুটি কাটায়। গ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা দিনকে দিন কমেই যাচ্ছে। এজন্য গ্রাম পরিষদ সিদ্ধান্ত নিয়েছে, কেউ যদি স্বেচ্ছায় এই গ্রামে এসে স্থায়ীভাবে থাকতে চায়, তাহলে তাকে পুরষ্কৃত করা হবে। প্রাপ্তবয়স্কদের দেওয়া হবে ২৬ হাজার ৬৪৮ ডলার এবং শিশুরা পাবে ১০ হাজার ৬৫৯ ডলার। এজন্য অবশ্য কিছু শর্ত পূরণ করতে হবে। আলবিনের বাসিন্দা হতে আগ্রহী ব্যক্তির বয়স অবশ্যই ৪৫ বছর বা তার কম হতে হবে। গ্রামে অন্তত ১০ বছর থাকার প্রতিশ্রুতি দিতে হবে।

ক্যান্ডেলা, ইতালি
ইতালির ছোট শহর হলো ক্যান্ডেলার জনসংখ্যাও কমছিল ক্রমাগত। এই অবস্থা বদলাতে ২০১৭ সালে বিশেষ অফার দিতে শুরু করে কর্তৃপক্ষ। তারা প্রতিশ্রুতি দেয় যে, কেউ শহরে এসে স্থায়ীভাবে বাস করতে শুরু করলে তাকে ২ হাজার ডলার পর্যন্ত প্রতিশ্রুতি দেওয়া হবে। আপনি যদি একা যান তাহলে দেওয়া হবে ৮০০ ইউরো। যদি আপনার সঙ্গীকে সাথে নিয়ে যান তাহলে প্রত্যেককে দেওয়া হবে এক হাজার দুইশো ইউরো। আর যদি পুরো পরিবার নিয়ে যান তাহলে পরিবারের আকারের উপর ভিত্তি করে জনপ্রতি হিসেবে মিলবে এক হাজার তিনশো থেকে দুই হাজার ডলার।

স/এষ্

Print Friendly, PDF & Email