ফের আসনে বসতে যাচ্ছে: মোদি

নিউজ ডেস্ক: টানা দ্বিতীয় মেয়াদে ভারতের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় বসতে যাচ্ছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এর আগে ২০১৪ সালের নির্বাচনে যে পরিমাণ আসন ও জনপ্রিয়তা নিয়ে ক্ষমতায় এসেছিলেন, এবার তার চেয়েও বেশি ভোটের ব্যবধানে সরকার গঠন করবেন নরেন্দ্র মোদি সমর্থিত জোট।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) সকাল থেকে ভোট গণনা শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে প্রায় সাড়ে ৩০০ আসনে এগিয়ে আছে নরেন্দ্র মোদির ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক অ্যালোয়েন্স (এনডিএ) সেখানে কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউনাইটেড প্রগ্রেসিভ অ্যালাইয়েন্স (ইউপিএ) এখন পর্যন্ত একশ আসনও নিশ্চিত করতে পারেনি।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম প্রাথমিক যে ফলাফল দিচ্ছে তাতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ ৩২৫ আসনে এগিয়ে রয়েছে। অন্যদিকে রাহুল গান্ধীর কংগ্রেস নেতৃত্বধীন জোট  ইউপিএ ৯৮ আসন ও অন্যান্য দল ১১৯ আসনে এগিয়ে আছে।

ভারতীয় পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ বা লোকসভার ৫৪৩ আসনের মধ্যে ৫৪২টিতে নির্বাচন হয়েছে সাত পর্বে। সরকার গঠন করার জন্য কোনো দল বা জোটকে পেতে হবে ২৭২ আসন।

প্রাথমিকভাবে বেসরকারি ফলাফলে ইতোমধ্যেই এ সংখ্যা পেরিয়ে গেছে মোদির এনডিএ জোট। এখন আনুষ্ঠানিক ফল ঘোষণার অপেক্ষা। সব কেন্দ্রের ভোট গণনা শেষে আজই ফলাফল ঘোষণা করা হবে।

এদিকে প্রাথমিক গণনা অনুযায়ী, উত্তর প্রদেশের বারাণসীতে এগিয়ে আছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তবে কেরালার ওয়েনাড়েতে এগিয়ে আছেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। অপরদিকে, গুজরাটের গান্ধীনগরে এগিয়ে আছেন বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ, উত্তরপ্রদেশের রায়বরেলীতে এগিয়ে আছেন সোনিয়া গান্ধী।

২০১৪ সালে ভারতের লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছিল। সেবার তারা পায় ২৮২ আসন। আর বিজেপি জোট পায় ৩৩৪ আসন।

অপর দিকে কংগ্রেস পেয়েছিল ৪৪টি আসন এবং জোটে তারা পায় ৬০ আসন। অন্যরা পায় ১৪৯ আসন।

প্রসঙ্গত, ১১ এপ্রিল শুরু হয়ে গত ১৯ মে শেষ হয় ভারতে পার্লামেন্ট নির্বাচনের ভোটগ্রহণ। এর আগে ১১ এপ্রিল প্রথম দফার ভোট, ১৮ এপ্রিল দ্বিতীয়, ২৩ এপ্রিল তৃতীয়, ২৯ এপ্রিল চতুর্থ, ৬ মে পঞ্চম, ১২ মে ষষ্ঠ দফার ভোট গ্রহণ করা হয়। সব শেষ সপ্তম দফার ভোট হয় ১৯ মে।

ভারতে সাধারণ নির্বাচনে ভোটগ্রহণের পর সঙ্গে সঙ্গে গণনা করা হয় না। ব্যালট বাক্স কিংবা ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনগুলো (ইভিএম) কঠোর নিরাপত্তায় সংরক্ষিত থাকে।

নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী, আজ স্থানীয় সময় সকাল ৮টায় কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে শুরু হয় ভোট গণনা। দিল্লির মসনদে কারা বসছে তা জানা যাবে কয়েক ঘণ্টা পরই।

এর আগে ভোট গণনা শুরুর আগে ইভিএমে কারচুপির আশঙ্কা প্রকাশ করে মঙ্গলবার দিল্লিতে নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে দেখা করে স্মারকলিপি দেয় বিরোধী দলগুলো। তবে নির্বাচন কমিশন তাদের সেই আশঙ্কা উড়িয়ে দেয়।

স/রারা

Print Friendly, PDF & Email