পূর্বসূরি বারাক ওবামার বিরুদ্ধে ফোনে আড়িপাতার যে অভিযোগ এনেছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, তা প্রত্যাখ্যান করেছেন এফবিআইয়ের প্রাক্তন প্রধান জেমস কোমি।

ওবামা ফোনে আড়িপাতার আদেশ দিয়েছেন বলে যে অভিযোগ আনা হয়েছে, প্রত্যাখ্যান করতে যুক্তরাষ্ট্রের বিচার বিভাগের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জেমস কোমি। এ ছাড়া এফবিআইয়ের বিরুদ্ধে আইন ভঙ্গের যে অভিযোগ তোলা হয়েছে, তাও তিনি  সংশোধন করতে বলেছেন।

এ খবর প্রথম প্রকাশ করে নিউ ইয়র্ক টাইমস এবং পরে তা এনবিসি তা নিশ্চিত করে বলে জানিয়েছে বিবিসি অনলাইন। তবে জেমস কোমির অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে বিচার বিভাগ এখনো কোনো বিবৃতি দেয়নি।

যুক্তরাষ্ট্রের গণমাধ্যমগুলো যে কর্মকর্তাদের উদ্ধৃত করেছে, তারা বলছেন, কোমি বিশ্বাস করেন ট্রাম্পের অভিযোগের পক্ষে কোনো প্রমাণ নেই।

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও তার প্রশাসন নির্বাচনের বিজয়ের জন্য রাশিয়ার সমর্থন নেওয়ার অভিযোগের মুখে চাপে রয়েছেন। এর মধ্যে তিনি পাল্টা তীর ছুড়লেন এবং তীরের লক্ষ্যবস্তু বানালেন ওবামাকে।

ট্রাম্পের অভিযোগ, গত বছর নির্বাচনের আগে ট্রাম্প টাওয়ারে তার ফোনে আড়িপাতার আদেশ দেন তৎকালীন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। এর মাধ্যমে তিনি হিলারি ক্লিনটনকে সুবিধা পাইয়ের দেওয়ার চেষ্টা করেন।

এদিকে, হোয়াইট হাউস কংগ্রেসের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছে, তদন্ত করে দেখা হোক- বারাক ওবামা ক্ষমতার অপব্যবহার করেছেন কি না।

বর্তমানে কংগ্রেস ও এফবিআই উভয়েই ট্রাম্পের সঙ্গে রাশিয়ার যোগাযোগের বিষয়টি তদন্ত করছে। এর আগে গোয়েন্দা সংস্থাগুলো মতৈক্যে পৌঁছায় যে, প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী হিলারি ক্লিনটনকে হারিয়ে ট্রাম্পকে জেতাতে নির্বাচনে ভূমিকা রেখেছে রাশিয়া।

হোয়াইস হাউসের মুখপাত্র শন স্পাইসার বলেছেন, ‘খুবই সমস্যাময়’ খবর যে, ২০১৬ সালের নির্বাচনের বিষয়ে সম্ভবত রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়ে তদন্ত করা হচ্ছে।

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে জেমস কোমি বলতে গেলে খোলামেলাভাবে হিলারির বিরোধিতা করেছেন। নির্বাচনের মাত্র কয়েক দিন আগে ব্যক্তিগত সার্ভারে ই-মেইল ব্যবহারের অভিযোগ এনে ভোটের মাঠে দুর্বল করে দেন হিলারিকে।  এতে লাভবান হন ট্রাম্প।

স/শা

print
Facebook Comments

এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

আরও পড়ুন