কাঠালিয়ায় ইউপি চেয়ারম্যানের অত্যাচারে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী

ঝালকাঠির কাঠালিয়া থেকে মো: মোছাদ্দেক বিল্লাহ: ঝালকাঠির কাঠালিয়া উপজেলার চেচরিরামপুর ইউপি চেয়ারম্যান এবং নব্য আওয়ামীলীগ নেতা জাকির হোসেন ফরাজীর একচ্ছত্র শাসন চলছে চেচরিরামপুর ইউনিয়নে।

সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে চাঁদাবাজি, সন্ত্রাসী লালন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের চাকরি নিয়ন্ত্রণ এবং রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়ন না করেই গত সাত (৭) বছরে কামিয়ে নিয়েছেন কয়েক কোটি টাকা।

এলাকাবাসী সূত্রে জানাযায়, জাকির ফরাজী চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে একক আধিপত্য বিস্তারের নামে প্রতিপক্ষ সহ এলাকার নিরহ মানুষদের দমনে মরিয়া হয়ে ওঠেন। এছাড়াও গত ২৪ মার্চ অনুষ্ঠিত হওয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতিকের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে নৌকা সমার্থকদের হামলা চালিয়ে জখম করা সহ বিগত দিনে চেচরীরামপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের প্রকৃত নেতাকর্মীদের মামলায় জড়িয়ে ও হামলা চালিয়ে হয়রানি ও শায়েস্তা করার একাধিক অভিযোগ রয়েছে তার নামে। ওই ইউপি চেয়ারম্যান স্থানীয় এমপির নাম ভাঙিয়ে এবং কিছু অসাধু নামধারী আওয়ামীলীগ নেতার সঙ্গে সখ্যতার সুযোগ নিয়ে সীমাহীন দূর্নীতি ও ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করলেও সাধারণ মানুষ তার প্রতিবাদ করতে সাহস পাচ্ছে না।

স্থানীয় আওয়ামীলীগের একাধিক নেতাকর্মীরা জানান, কাবিটা, টিআর, ননওয়েজ, এডিপি, অতিদরিদ্রের কর্মসংস্থান কর্মসূচি, এলজিএসপি প্রকল্প ও ভিজিডি, ভিজিএফ, বয়স্ক, বিধবা, প্রতিবন্ধী ভাতায় নাম দিতে মোটা অংকের ঘুষ গ্রহন করেন তিনি। তাছাড়াও সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কাজ না করে কাগজে কলমে শতভাগ কাজ দেখিয়ে টাকা উত্তোলন করাসহ ত্রাণের বিভিন্ন মালামাল ও টাকা আত্মসাৎ করে নিজের ফায়দা লুটে বর্তমান সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড বাধাগ্রস্ত করছেন।

চেচরিরামপুর এম এল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মেহেদী হাসান জানান, স্কুলের সভাপতি নির্বাচিত হয়ে নানান অনিয়মকে নিয়মে পরিনত করে কামিয়ে নিয়েছেন লক্ষ লক্ষ টাকা । তার এই অনিয়মের প্রতিবাদ করায় গত ০৪-১০-২০১৮ তারিখ স্কুলের ভিতরে সন্ত্রাসী নিয়ে এসে আমাকে এলোপাথারি কুপিয়ে পিটিয়ে হত্যার চেষ্টা চালায় তিনি ও তার ছোট ভাই জিয়া ফরাজীর সন্ত্রাসী বাহীনি। এ বিষয়ে আমি বাদী হয়ে কাঠালিয়া থানায় একটি হত্যা চেষ্টা মামলা দাখিল করছি । যে মামলায় তারা উচ্চ আদালত থেকে জামিন আনলেও তার ছোট ভাই জিয়া ফরাজীকে ১২ দিন জেল হাজতে থাকতে হয়েছে।

সরেজমিন স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানাগেছে, জাকির ফরাজীর নিজস্ব একটি বাহিনী আছে। যারা এলাকায় অনিয়মকে নিয়মে পরিণত করে বিচার সালিশ, হামলা, দখল ও মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করছে। আরো জানাযায়, স্থানীয় জনগণ জাকিরের বিরুদ্ধে মুখ খুললেই তাদের ক্যাডার বাহিনী এলাকাবাসীকে প্রতিনিয়ত হামলা,হত্যার হুমকি প্রদান করে। আর এভাবেই ভয়ভীতি প্রদর্শন করে জাকির ফরাজী গড়ে তুলেছেন নিজের সন্ত্রাসের রাজত্ব ও সম্পদের পাহাড়।

কাঠালিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের এক নেতা বলেন, বর্তমান সরকারের অর্জনকে ধুলোয় মিশিয়ে দিতে ক্ষমতাসীন দলের ব্যানারে জাকির ফরাজীর মতো কিছু সন্ত্রাসীই যথেষ্ট। আইন প্রয়োগকারী সংস্থার উচিত দ্রুত এদের মূলোৎপাটন করা।
এ বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান জাকির হোসেন ফরাজীর মুঠোফোনে একাধিক বার ফোন করলে তিনি রিসিভ না করে ফোনটি কেটে দেন ।

স/এষ্

Print Friendly, PDF & Email