রামকৃঞ্চপুরে বিষ দিয়ে মাছ মেরে ফেলায় ক্ষতিগ্রস্থের থানায় অভিযোগ!

ফিরোজ জোয়ার্দ্দার-ঃ সাতক্ষীরার কলারোয়ায় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে পুকুরে গ্যাস ট্যাবলেট (বিষ) দিয়ে মাছ মেরে ফেলার অভিযোগ উঠেছে প্রতিপক্ষ জাবেদ আলীর পরিবারের বিরুদ্ধে।

ক্ষতিগ্রস্থ মাছ চাষী ইউনুচ আলী (৪৮) ঘটনার প্রতিকার চেয়ে নিজে বাদী হয়ে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

সেই অভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত করতে তদন্ত কর্মকর্তা এসআই পীযূষ কান্তি ঘোষ ঘটনাস্থলে পরিদর্শন করে উভয় পক্ষকে ডেকে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার জন্য শান্ত থাকতে বলেন আর প্রকৃত ঘটনার রহস্য উৎঘটন করে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে আশ্বাস্ত করেন।

ঘটনাটি (১৪ই মে মঙ্গলবার) উপজেলার রামকৃঞ্চপুর গ্রামের চাষী ইউনুছ আলীর বাড়ীর পুকুরে ঘটে।
থানার লিখিত অভিযোগের বিবরণে জানা যায়, রামকৃঞ্চপুর গ্রামের মৃত ছাদেক আলীর ছেলে ইউনুছ আলীর সাথে প্রতিপক্ষ একই গ্রামের জাবেদ আলী (৫৫), তার স্ত্রী বেগম বিবি (৪৫) ও বাবর আলীর ছেলে কুরবান আলী (৩৮) এর সাথে দীর্ঘ বছর ধরে সু-সম্পর্ক চলে আসছিলো।

সেই মোতাবেক প্রতিপক্ষ জাবেদ আলীর অনুরোধে তাকে সাইড বিদ্যুৎ এর লাইন চালানোর ব্যবস্থা করে দেন ইউনুছ আলী। কিন্তু পরবর্তীতে ইউনুছ আলী জানতে পারেন যে সাইড বিদ্যুৎ এর লাইন দেয়া বে-আইনী। তখন ইউনুছ আলী প্রতিপক্ষ জাবেদ আলীর বাড়ীর বিদ্যুৎ এর লাইন কেটে দেন। তাতে প্রতিপক্ষ জাবেদ আলী ক্ষিপ্ত হয়ে ইউনুছ আলীর সাথে শত্রুতার সৃষ্টি করতে থাকেন।

শত্রুতা পোষন করে প্রতিপক্ষ প্রতিনিয়ত ইউনুছ আলীকে অপরাধমুলক ভয়ভীতি ও খুন জখমের হুমকি প্রদর্শন করতে থাকে। প্রতিপক্ষর সাথে বিবাদে না গিয়ে বাদী ইউনুছ আলী আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে তাদের এড়িয়ে চলে। কিন্তু প্রতিপক্ষ বাদীর সাথে পায়ে পা বাঁধিয়ে গোলোযোগের পায়তারাসহ ক্ষতি সাধনের চেষ্টা করতে থাকেন।

এরই ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবার গভীর রাতের কোন এক সময় বাদী ইউনুছ আলীর লাগোয়া পুকুরে প্রতিপক্ষ জাবেদ আলীসহ বিবাদীরা কৌশলে গ্যাস ট্যাবলেট (বিষ) প্রয়োগ করেন। এতে মাছ চাষী ইউনুছ আলীর পুকুরের ৬০ হাজার টাকার মাছ মরে ক্ষতিসাধন হয়।

এদিকে প্রতিপক্ষ’র কাছে জানতে চাওয়া হলে তারা বলেন পুকুরে গ্যাস ট্যাবলেট (বিষ) প্রয়োগ করে মাছ মেরে ফেলে হয়েছে আর পরবর্তীতে সুযোগ পেলে ভাতের থালার সাথে বিষ মিশিয়ে হত্যা করার চেষ্টা করবেন।

ফলে ক্ষতিগ্রস্থ মাছ চাষী ইউনুছ আলী প্রতিপক্ষ’র সাথে বিবাদে না গিয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলামকে জানান। তারপর আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে ঘটনার প্রতিকার চেয়ে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

সেই মোতাবেক ইউপি সদস্য উভয় পক্ষকে ডেকে স্থানীয়ভাবে আপোষ মিমাংসার চেষ্টা করে ব্যার্থ হয়।

অভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত করে তদন্ত কর্মকর্তা থানার এসআই পীযূষ কান্তি ঘোষ জানান, অভিযোগটি আমলে নিয়ে তদন্তের জন্য ঘটনাস্থলে পরিদর্শনে গিয়ে তিনি ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলামসহ গন্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে উভয় পক্ষকে ডেকে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার্থে শান্ত থাকার জন্য নির্দেশ দেন। পুকুরে গ্যাস ট্যাবলেট (বিষ) প্রয়োগ করে মাছ মেরে ফেলার ঘটনা খুবই দুঃখজনক।

প্রকৃত ঘটনা উৎঘটন করে দোষী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইন মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহন করবেন বলে তিনি আশ্বাস্ত করেন।

স/এষ্

Print Friendly, PDF & Email