বাড়তে পারে ভূমধ্যসাগরে নিহতদের সংখ্যা, বেশির ভাগই বাঙ্গালী!

নিউজ ডেস্ক: লিবিয়া থেকে ইতালি যাত্রা পথে ভূমধ্যসাগরে অভিবাসীবাহী প্রায় ৭৫ জন যাত্রী একটি নৌকা ডুবে যায়। সেখানে ৭৫ জন যাত্রীর মধ্যে ৫১ জনেই বাংলাদেশী। ইতিমধ্যে বাংলাদেশের ৬ জনের পরিচয় সনাক্ত করা হয়েছে।

তারা সিলেট ও মৌলভীবাজার জেলার বাসিন্দা। নিহত ব্যক্তিরা হলেন সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জের মুহিদপুর গ্রামের মন্টু মিয়ার ছেলে আহমদ হোসেন, একই গ্রামের হারুন মিয়ার ছেলে আবদুল আজিজ, মফিজুর রহমান সিরাজের ছেলে লিটন শিকদার,গোলাপগঞ্জের হাওরতলা গ্রামের রফিক মিয়ার ছেলে আফজাল মোহাম্মদ

এছাড়াও নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে রয়েছেন, শরীফগঞ্জ ইউনিয়নের ইয়াকুব আলীর ছেলে কামরান আহমদ মারুফ এবং মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার ভুকসিমাইল গ্রামের আহসান হাবীব শামীম। আহসান হাবীব শামীম সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শাহরিয়ার আলম সামাদের ছোট ভাই এবং কামরান আহমদ মারুফ তাঁর শ্যালক।

এর আগে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সেখানে নিহতের সংখ্যা বাংলাদেশের ৩০ থেকে ৩৫ জন নিহত হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে বলে মনে করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন। নৌকাডুবির ঘটনায় লিবিয়া থেকে আমাদের দূতাবাস খোঁজ-খবর নিচ্ছে। তারা সেখানে যাচ্ছেন। খোঁজ-খবর নেওয়ার পর আমরা প্রকৃত ঘটনা জানতে পারবো।

তিনি বলেন, লিবিয়ায় জনশক্তি পাঠানো বন্ধ রয়েছে। তবে মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশ হয়ে লিবিয়া উপকূল থেকে নৌকাযোগে ইউরোপে প্রবেশ করছেন অনেক বাংলাদেশি। আদম ব্যবসায়ীরা তাদের নিয়ে যাচ্ছেন। আর সেখানে যাওয়ার সময় প্রায়ই এমন দুর্ঘটনা ঘটছে।

এছড়াও তিনি আরোও বলেন, বাংলাদেশ থেকে লোকজন কোথায় কীভাবে যাচ্ছেন, যাওয়ার সময় ইমিগ্রেশন বিভাগের আরো খোঁজ-খবর নেওয়া উচিত। এছাড়া বিদেশে অবস্থান করছেন যেসব বাংলাদেশি তারা আমাদের মিশনে নিবন্ধন করেন না। তাই লোকজনকে সচেতন হতে হবে।

স/এষ্

Print Friendly, PDF & Email