মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি:

ধর্ম এবং নারী বিদ্বেষী বক্তব্য দেয়া টঙ্গিবাড়ী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি জগলুল হাওলাদার ভুতু যেন যেই লাউ সেই কদু। সম্প্রতি তিনি মুন্সীগঞ্জ ২ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম সাহেবের মতবিনিময় সভায় দেয়া নারী এবং ধর্ম বিদ্বেষী বক্তেব্যে তোলপার শুরু হয়েছে। তিনি তার বক্তেব্যে যা বলেছিলেন তার কিছু অংশ তুলে ধরা হলো। নেত্রী মুন্সীগঞ্জ-১ আসনে মনোনয়ন দেয় এমপি সুকুমার রঞ্জন ঘোষকে ওনি একজন ভালো লোক । মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনে মনোনয়ন দেয় মৃনাল দাদাকে ওনিও ভালো লোক। ওনারা কেউ আমাদের জানাজায় অংশ গ্রহন করতে পারেনা। টঙ্গিবাড়ীর মানুষ আমরা অত্যান্ত দূর্ভাগা এখানে মনোনয়ন দেয় একজন মহিলাকে। আমরা মারা গেলে সেও জানাজায় অংশ গ্রহন করতে পারেনা। তাই আমরা মুন্সীগঞ্জ-২ আসনের মানুষ নেত্রীর কাছে আবেদন করছি তিনি যেন এখানে একমন কাউকে মনোনয়ন দেয় সে যেন আমাদের জানাযায় অংশ গ্রহন করতে পারে। মুন্সীগঞ্জ ২ আসনে যদি মাহবুবে আলমকে মনোনয়ন দেয় ওনি আমাদের জানাজায় অংশ গ্রহন করতে পারবে। মাহবুব সাহেবের জন্য সকলে ভোট চাইবেন । কেউ যনি অন্যায়ভাবে বাঁধা দেয় তাদেরকে প্রতিহত করবেন বলেও হুশিয়ারি উচ্চারন করেন তিনি।

তার এই বক্তব্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ছড়িয়ে পড়ে। বিভিন্ন অনলাইন পত্রিকা, লোকাল দৈনিকসহ বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় প্রচার হয়। এরপর থেকে জগলুল হাওলাদার ভুতু বিভিন্ন মাধ্যমে সংবাদকর্মীদের ম্যানেজ করার চেষ্টা করেন। তাতে ব্যর্থ হয়ে বিভিন্ন মাধ্যমে সংবাদকর্মীদের নামে মামলা করারও হুমকি দেয় । সর্বশেষ ২ অক্টবর মঙ্গলবার সকালে গত ২৯ সেপ্টম্বর শনিবার পাঁচগাওয়ের অনুষ্ঠিত হওয়া মতবিনিময় সভায় উপস্থিত কয়েক জনের নাম উলেক্ষ্য জগলুল হাওলাদার ভুতুর নিজ স্বাক্ষরীত সাদা কাগজে একটি প্রতিবাদ লিখে পাঠায় সংবাদ কর্মীদের কাছে। স্বাক্ষরিত প্রতিবাদ বার্তায় তিনি লিখেছেন, গত- ২৯ সেপ্টম্বর আমি আমার বক্তব্যে বলেছি আমি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাধারন কর্মী হিসাবে, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সভাপতি জননেত্রী শেখ হাসিনার নিকট আকুল আবেদন জানাই। মুন্সীগঞ্জ ২ আসনে এমন একজন ব্যক্তিকে মনোনয়ন দেন। আমি মারা গেলে সে যেন আমার জানাজায় অংশ গ্রহন করতে পারে। আমি কখনই মুন্সীগঞ্জ জেলা নারী নেতৃত্ব চাইনা এই কথা উক্ত সভায় বলি নাই। এটা স্বরযন্ত্রমূলকভাবে প্রচার করা হয়েছে।

তার এই বক্তেব্যের ব্যাখ্যার বিষয়ে স্থানীয় সুশীল সমাজ ও রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করেন। দুইজন এমপি হিন্দু তারা জানাজায় অংশ নিতে পারেনা। মুন্সীগঞ্জ ২ আসনের এমপি হলো মহিলা ওনিও জানাজায় অংশ নিতে পারবেনা। জগলুল হাওলাদার ভুতু ২৯ সেপ্টেম্বর পাঁচগাও বাজারে মত বিনিময় সভায় যে বক্তব্য দিয়েছেন সেই বক্তব্যের প্রতিফলন ঘটেছে তার লিখিত বক্তেব্যে

বাংলাদেশের কমিউনিষ্ট পার্টির মুন্সীগঞ্জ জেলার সাধারন সম্পাদক ও উদিচী শিল্পীগোষ্টি মুন্সীগঞ্জ জেলার সাধারন সম্পাদ নারী নেত্রী হামিদা খাতুন বলেন, ওনারা বলে আওয়ামীলীগ ধর্ম নিরপেক্ষ দল। ওনার বক্তেব্যে সকল শ্রেনীর নারীদের অসম্মান করেছে। ধর্ম নিয়ে এই ধরনের মন্তব্যও করা ঠিক হয়নি। আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ মুন্সীগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি এ্যাড. নাছিমা আক্তার বলেন,নারীদের নিয়ে এমন মন্তব্য করার সাহস তাকে কে দিয়েছে। তার বক্তব্যে ধর্ম এবং নারীদের অপমান করা হয়েছে। আমরা তার বক্তব্যের নিন্দা জানাচ্ছি এবং এই বিষয়টি আগামী মিটিংয়ে আমরা উপস্থাপন করবো।

টঙ্গিবাড়ী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি জগলুল হাওলাদার ভুতুর স্বক্ষরিত সাদাকাগজে লিখিত বক্তেব্যের বিষয়ে জানতে চাইলে মুঠোফোনে তিনি জানান, মুন্সীগঞ্জ ২ আসনে এমন একজন ব্যক্তিকে মনোনয়ন দেন। আমি মারা গেলে সে যেন আমার জানাজায় অংশ গ্রহন করতে পারে। আমি কখনই মুন্সীগঞ্জ জেলা নারী নেতৃত্ব চাইনা এই কথা উক্ত সভায় বলি নাই । আমার বিরুদ্ধে ষরযন্ত্র চলছে।

স/এষ্

print

Facebook Comments

এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

আরও পড়ুন