মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি: টঙ্গিবাড়ী উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান রাহাত খাঁন রুবেল বলেছেন ,বাংলাদেশ আওয়ামিলীগের সুনাম বজায় রাখতে অগঠনতান্ত্রিক এবং পরগাছাদের নিয়ে সভা সমাবেশ বন্ধ করুন। রবিবার টঙ্গিবাড়ী – লৌহজং নিয়ে গঠিত মুন্সীগঞ্জ ২ আসনের আগামী সংসদ নির্বাচনী ভাবনা নিয়ে একান্ত আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন । বিভিন্ন মনোনয়ন প্রত্যাশীদের উদ্দেশ্য করে তিনি আরো বলেন, মনোনয়ন যে কেউ চাইতে পারে । তবে তাকে অবশ্যই দলের গঠনতন্ত্র মেনে সভা সমাবেশ করতে হবে। উপজেলা এবং ইউনিয়নগুলোতে কতিপয় মনোনয়ন প্রত্যাশী আলোচনা সভা করে অথচ সেই উপজেলা, ইউনিয়ন এবং ওয়ার্ড আ”লীগের নেতাদের জানানো হয় না। উক্ত সমাবেশগুলোতে বহিরাগত লোক, বিভিন্ন উপজেলার হাইব্রিড নেতাদের উপস্থিতি লক্ষ করা গেছে। এতে করে তৃনমূল আওয়ামিলীগ কর্মীদের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে । বহিরাগতদের হুন্ডার মহড়ায় আতংকিত হয়ে পড়ছে সাধারন ভোটাররা। এভাবে চলতে থাকলে তৃনমূলের ত্যাগী কর্মীদের মনোবল ভেঙ্গে পড়বে । যা আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এর বিরোপ প্রভাব পড়বে।

তিনি আরো বলেন, এই ধরনের সভা সমাবেশে কারা আসছে? তারা কোন দলের লোক? তাদের আসার উদ্দ্যেশ্য কি? জামাত বিএনপির চিহ্নিত নেতাকর্মীদের কারা নিয়ে আসছে আ”লীগের দলীয় সমাবেশে । এই বিষয়গুলো তদন্ত করার দাবি জানাচ্ছি । মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমার দাবি আমরা যারা এই আওয়ামিলীগের জন্য বছরের পর বছর কষ্ট করেছি। অর্থ খরচ করেছি, সময় দিয়েছে। জেল খেটেছি মামলার বোঝা বয়েছি । আসলেই আপনি তদন্ত করলেই জানতে পারবেন তৃনমূলের কর্মীরা আজও কতটা অসহায় । তারা আপনার ডাকের অপেক্ষায় রয়েছে নৌকার বিজয়ের জন্য তারা নিজের জীবনও দিতে প্রস্তুত। কিন্তু এখন কিছু নেতা সরকারের সুযোগ সুবিধা নিয়ে দলের পদ ব্যবহার করে দলের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সমাবেশে বক্তব্য দিচ্ছে । দলের সাইন বোর্ড ব্যবহার করে অবৈধ অর্থ ও সম্পক কামিয়েছে । এখন সেই অর্থ দিয়ে তৃনমূল নেতাদের চরিত্র নষ্ট করার পায়তারা করছে।

আওয়ামিলীগের কোন কর্মী টাকায় বিক্রি হয়না উল্লেখ করে রাহাত খাঁন রুবেল আরো বলেন, যারা ভাবছেন টাকা দিয়ে কর্মীদের মাথা কিনে নিবেন তারা বোকার স্বর্গে বাস করছেন। আপনারা সভা সমাবেশে জামাত বিএনপি ও বহিরাগতদের ভাড়া করে এনে শক্তিশালী আওয়ামিলীগের ক্ষতি করে জামাত বিএনপিকে খুশি করাবেন এটা কোন দিন সম্ভব হবেনা । আপনারা মনে রাখবেন আওয়ামিলীগের কর্মীরা মাথা নত করেনা। আপনার যতই তর্জন গর্জন করেন কোন লাভ হবে না। যে মাতা সন্তানকে ছোটবেলা থেকে বড় করে তুলেছে সে মা বুঝে সন্তান মানুষ করতে কতোটা পরিশ্রম করতে হয়েছে তার। আপনারা উঁড়ে এসে জুরে বসতে চাইবেননা । মায়ের চেয়ে যখন মাসির দরদ বেশী তখন বুঝেই নিতে হবে তাদের আসল উদ্দেশ্য কি? । স/রহ

print
Facebook Comments

এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

আরও পড়ুন