ইমানুল সোহান, ইবি প্রতিনিধি-
ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) এক ছাত্রীকে শিক্ষক কর্তৃক হেনস্থার প্রতিবাদে বিক্ষোভ করেছে শিক্ষার্থীরা। এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমান বিক্ষোভরত শিক্ষার্থীদের বাঁধা দেয়। রবিবার সাড়ে ১১টায় ক্যাম্পাসের ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদে এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং বিভাগের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের এক ছাত্রী বিভাগের শিক্ষক কর্তৃক মানসিক হেনস্থার শিকার হন। পরে ওই ছাত্রী মানসিক ভারসাম্যহীণ হয়ে পড়লে হল কর্তৃপক্ষ তাকে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে। এ ঘটনায় শনিবার থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা মানসিক হেনস্থা ও নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন শুরু করে। আজ রবিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ক্যাম্পাসের ঝাল চত্ত্বর থেকে একটি প্রতিবাদ মিছিল বের করে শিক্ষার্থীরা।
তবে প্রথম থেকেই উক্ত বিভাগের শিক্ষার্থীদেরকে শিক্ষকের বিরুদ্ধে আন্দোলনে নামতে কৌশলে বাধা দেয়া হয়। ছাত্রী নির্যাতনের ঘটনায় প্রতিবাদ মুখর অনেক শিক্ষার্থীকে আন্দোলনে নামলে একাডেমিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করার হুমকি-ধামকি দেওয়া হয়। তবে বোনকে হেনস্থার বিচার চেয়ে ক্যাম্পাসর অন্যান্য বিভাগের সাধারণ শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ মিছিল করেছে। সাধারণ শিক্ষার্থীদের ক্যাম্পাসের বিভিন্ন চত্ত্বর এবং অনুষদ প্রদক্ষিণ করে উক্ত বিভাগের সামনে গেলে মিছিলকারী সাধারণ শিক্ষার্থীদের প্রতিহত করতে কৌশলে ফিন্যান্স বিভাগের কিছু শিক্ষার্থীকে সামনে নামিয়ে দেয়। কিছুক্ষণ পরে প্রক্টর অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমান ঘটনাস্থলে গিয়ে সাধারণ শিক্ষার্থীদের উপর চড়াও হন। এসময় আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন হুমকি ধামকি দেন প্রক্টর। এক পর্যায়ে নিজেই শিক্ষার্থীদের মারতে উদ্দোত হন। পরে আন্দোলনকারী দুই শিক্ষার্থীর আইডিকার্ড নিয়ে নেন প্রক্টর।

এসময় তথ্য সংগ্রহে সাংবাদ কর্মীরা সেখানে গেলে ফিন্যান্স বিভাগের শিক্ষার্থীদের কৌশলে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধেও লাগিয়ে দেওয়া হয়। শিক্ষার্থীরা সাংবাদিকদের তথ্য সংগ্রহে বাধা প্রদান করে।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে প্রক্টর ড. মাহবুবর বলেন,‘বিক্ষোভকারী দুই শিক্ষার্থীর আইডিকার্ড নেয়া হয়েছে। ক্যাম্পাসে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আরআর

print

Facebook Comments

এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

আরও পড়ুন