online desk 

মহেন্দ্র সিং ধোনির ব্যাট জ্বলে উঠল বেশ কিছু দিন পর। সেই সঙ্গে মনীষ পান্ডে। এই দুইয়ের ব্যাটে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৪ উইকেটে ১৮৮ রান তুলেও ম্যাচটা হেরে গেল ভারত। দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে লড়লেন হেনরিক ক্লাসেন ও জেপি ডুমিনি। ইনিংসের মধ্য ওভারে ভারতীয় বোলারদের পথ হারানোর পুরো সুযোগই নিয়েছেন তাঁরা। ক্লাসেনের ৩০ বলে ৬৯ আর ডুমিনির ৪০ বলে ৬৪ রানে ৮ বল বাকি থাকতেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় প্রোটিয়ারা।

দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে যুজবেন্দ্র চাহালের বোলিং আতঙ্ক ছড়িয়ে যাচ্ছিল প্রোটিয়া-শিবিরে। গতকাল এই চাহালের ওপরই সবচেয়ে বেশি খড়্গহস্ত তারা। ৪ ওভার বল করে ৬৪ রান দিয়েছেন এই লেগ স্পিনার। জসপ্রীত বুমরা চোটের কারণে ছিলেন না। তাঁর জায়গায় আসা শার্দুল ঠাকুর বুমরার অভাব পূরণ করতে পারেননি। ভুবনেশ্বর কুমার, জয়দেব উনাদকাট—দুজনেই ছিলেন খরুচে। ঠাকুর-পান্ডিয়া উইকেট পেলেও রান খরচে পিছিয়ে ছিলেন না—সব মিলিয়ে ভারতীয় বোলারদের ‘অফ ডে’টা ভালোভাবেই কাজে লাগিয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটসম্যানরা।

টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে ভারতের শুরুটাও ভালো হয়নি। স্কোরবোর্ডে কোনো রান না উঠতেই বিদায় নেন রোহিত শর্মা। শিখর ধাওয়ান ১৪ বলে ২৪ রান করে ফিরে যান। মাত্র ১ রান করে আউট হন বিরাট কোহলি। সুরেশ রায়না ৩১ রানের বেশি করতে পারেননি। ১০ ওভারের মধ্যে ৯০ রানে ৪ উইকেট হারানো ভারতকে পথ দেখান মনীষ পান্ডে আর অভিজ্ঞ ধোনি। পান্ডিয়া ৭৯ রান করেন মাত্র ৪৮ বলে। মেরেছেন ৬ চার ও ৩ ছক্কা। ধোনি ২৮ বলে ৪টি চার ও ৩টি ছয়ে করেন ৫২। দুজনের অপরাজিত যুগলে ভারতের সংগ্রহ মোটামুটি চ্যালেঞ্জিং চেহারা নেয়—২০ ওভারে ৪ উইকেটে ১৮৮।

দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটসম্যানদের চিন্তার কারণ হয়ে ছিলেন চাহাল। ভুবনেশ্বর কুমারও। কিন্তু এই দুজনকে ভালোভাবেই সামলেছেন তাঁরা। ২৪ রানে প্রথম আর ৩৮ রানে দ্বিতীয় উইকেট হারানোর পরেও ডুমিনি-ক্লাসেন জুটি দলকে জয়ের দিকে এগিয়ে নেয় অনেকটা পথই। ক্লাসেনের ইনিংসে ছিল ৭টি ছয়ের মার।

স/মা

print

Facebook Comments

এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

আরও পড়ুন