খাইরুল ইসলম, ঝালকাঠি প্রতিনিধি: ঝালকাঠিতে এবছর সরিষার বাম্পার ফলনের হাতছানি দেখা দেয়ায় কৃষকের মুখে হাসি ফোটেছে। দক্ষিঞ্চলের ফসলের মাঠগুলোতে এখন সরষের হলুদ ফুলে ছেয়ে গেছে। মাঠের পর মাঠ জুড়ে বিরাজ করছে থোকা থোকা হলুদ ফুলের দৃষ্টিনন্দন মনোমুগ্ধকর দৃশ্য। সরষের ফুল আকৃষ্ট করছে মৌমাছিসহ প্রকৃতি প্রেমীদের। গোটা গ্রামঞ্চলের সরষের হলুদ রাজ্যে মৌমাছির গুঞ্জনে মুখরিত হয়ে উঠেছে। মৌমাছিরা যেন গোটা রাজ্য শাষন করছে। মৌচাষিরা মধু আহরনে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন। নয়নাভিরাম সেই সরষে ক্ষেতের আলে আলে এখন শুধুই সারি সারি সবুজের ফাঁকে হলুদের সমাহার। আবহাওয়া অনুকুল থাকলে চলতি মৌসুমে এ অঞ্চলে লাভজনক ও ব্যপক উৎপাদনের সম্ভাবনা রয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।
ধান বা অন্য ফসলের তুলনায় লাভ জনক হওয়ায় কৃষকরা দিন দিন সরিষা চাষের দিকে ঝুকছে। যেদিকে দৃষ্টি যায় শুধু সবুজের ফাঁকে হলুদের সমাহার। রাস্তার ধারে কিংবা ফসলের মাঠে সবুজের মাঝে চোখ ধাঁধানো হলুদ ফুল আর ফুল। ফুলের বিস্তীর্ণ মাঠে দূরন্ত শিশুরা মেতে উঠছে নানা রকমের খেলাধূলায়। সদর উপজেলার বিভিন্ন সরিষার মাঠগুলোতে পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকেরা। এ সময়টা পোকা-মাকড়সহ বিভিন্ন রোগ-বালাইয়ের আক্রমণ বেশি হওয়ায় কাক্ষিত ফসল ঘরে তুলতে বাড়তি পরিচর্যা করতে হচ্ছে কৃষকদের।
ঝালকাঠি সদর উপজেলার ধানসিড়ি ইউনিয়নের কৃষক সোইয়ব আলী জানান, চলতি রবি মৌসুমে এক একর জমিতে সরষে আবাদ করেছি। বেশ ভালোই ফুল ফুটেছে আসা করা যায় ফলন ভাল হবে।
ঝালকাঠি জেলার নলছিটি উপজেলার বারইকরণ গ্রামের কৃষক বলেন, ‘আমরা এক একর জমিতে সরিষার চাষ করেছি। মাঠে বেশ ফুল ফুটেছে। আসা করছি ফলন ভাল হবে। সরিষায় ধানের চেয়ে অধিক লাভজনক হওয়ায় প্রতি বছরের ন্যায় এবাছরও আবাধ করছি।
কৃষি বিভাগ সুত্র জানায়, জেলার চার উপজেলার ৪৭৫ হেক্টর জমিতে এবছর সরিষাড় আবাধ হয়েছে। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ২০০ হেক্টর, নলছিটিতে ১৭৫ হেক্টর, রাজাপুরে ৫০ হেক্টর ও কাঠালিয়ায় ৫০ হেক্টর জমিতে সরিষার চাষ হয়েছে।
জেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা মো. শাহজালাল বলেন, জেলার চার উপজেলার ৪৭৫ হেক্টর জমিতে এবছর সরিষার আবাধ হয়েছে। ‘আমরা কৃষকদেরকে মাঝে বীজ ও সার সরবরাহ করেছি। পাশাপাশি কৃষকদেরকে নিয়মিত পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছি। তবে প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে এবার সরষের ভালো ফলন হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেছেন।
মো: খাইরুল ইসলম, ঝালকাঠি থেকে।

স/এষ্

print

Facebook Comments

এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

আরও পড়ুন