তবিবুর রহমান আকাশ, ইবি সংবাদদাতা-
অপরাধ নিয়ন্ত্রণ, সনাক্ত করণ ও সুরক্ষিত নিরাপত্তা প্রদানে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস অত্যাধুনিক প্রযুক্তি সম্পন্ন সিকিউরিটি ক্যামেরার আওতায় আনা হয়েছে। আবাসিক হল, বিভিন্ন ভবন, স্থাপনা, গুরুত্বপূর্ণ স্থান, রাস্তাঘাটসহ পুরা ক্যাম্পাস এখন ক্যামেরার আওতাধীন। বৃহষ্পতিবার সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয় ভিসি আনুষ্ঠানিকভাবে এ সিকিউরিটি ক্যামেরার উদ্বোধন করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন প্রো-ভিসি প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান, ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম তোহা, প্রক্টর প্রফেসর ড. মোঃ মাহবুবর রহমান, আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।

জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালকে ডিজিটালাইজেশন করতে কম্পিউটার সেন্টারের পরিচালক প্রফেসর ড. পরেশ চন্দ্র বম্মনকে আহ্বায়ক করে ৮সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করে দেয় প্রশাসন। কমিটি সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন ও বাস্তাবয়নের জন্য তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রফেসর ড. মোঃ জাহিদুল ইসলাকে আহ্বায়ক করে ৩সদস্য বিশিষ্ট একটি উপ-কমিটি গঠন করে। কমিটির অন্যান্য সদস্য হলেন সহকারী অধ্যাপক জসিম উদ্দিন ও ড. নাঈম মোর্শেদ।

সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন ও বাস্তবায়ন কমিটির আহ্বায়ক প্রফেসর ড. মোঃ জাহিদুল ইসলাম বলেন,‘সমাবর্তনকে সামনে রেখে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বিশ্ববিদ্যালয় ডিজিটাইজেশন কমিটি আমাদের উপর সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপনের দায়িত্ব অর্পন করেন। আমরা সমগ্র ক্যাম্পাস ১২টি পুলে ১০টি পিটিজেট ও ১০টি বুলেট ক্যামেরা স্থাপন করেছি। পিটিজেট ক্যামেরাগুলো ৩৬০ডিগ্রি পর্যন্ত ঘুরানো যাবে। সম্পূর্ণ আন্ডার গ্রাউন্ড অপটিক্যাল ফাইভার তার দিয়ে এগুলো স্থাপন করা হয়েছে। এর আনুমানিক ব্যয় প্রায় ১৭লাখ টাকা।

প্রক্টর প্রফেসর ড. মোঃ মাহবুবর রহমান বলেন,‘দীর্ঘ দিনের প্রত্যাশা ছিল বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি নিরাপত্তা বলায় তৈরী করা। এখন থেকে সেটি পূর্ণরুপে প্রকাশ পেল।

ভিসি প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী বলেন,‘বিশ্ববিদ্যালয় আভ্যন্তরীন সার্বক্ষণিক নিরাপত্তায় এটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ হিসেবে ভূমিকা পালন করবে। এটি আসন্ন সমাবর্তনকে সুষ্ঠুরুপে সম্পূর্ণ করতে সহায়তা করবে।

স/এষ্

print

Facebook Comments

এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

আরও পড়ুন