অনন্যা হীরা : সারাদেশে বেকার যুবকদের অসহায়ত্তের সুযোগ নিয়ে এক শ্রেণির পেশাদার দুর্বিত্ত ও দালাল চাকুরি দেয়ার নামে তাদের অর্থ সম্পদ লুন্ঠন করছে। এ ধরনের ঘটনা একটি দুটি নয়। অসংখ্য/বহুদিন যাবৎ এ অপকর্ম চলছে/কর্তৃপক্ষ নীরব। কোন কোন প্রতিষ্ঠান লোক দেখানো একটি দুটি বিজ্ঞাপন দিয়ে তাদের দায়িত্ব শেষ করেন। দরখাস্ত দিলে কর্মকর্তারা দালাল ও প্রতারকদের বাঁচাতে ব্যস্ত হয়ে ওঠে। এ কারণে অনেকেই প্রতিকার চান ও পাননা।

বগুড়ার দুটি ঘটনা দু’বাহিনীর ২ সদস্য নিরীহ যুবকদের চাকুরি দেয়ার নামে তাদের নিকট থেকে ৯,৫০,০০০/- (নয় লাখ পঞ্চাশ হাজার) টাকা লুন্ঠন করে নিরাপদেই আছেন।

মজনুর রহমান (২৪), পিতা-আহম্মদ আলী, গাবতলী, বগুড়ার ছেলে। বেকারত্বের অভিসাপ থেকে মুক্তি পেতে একটি আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য জাহিদুল ইসলাম পিতা-মফিজ উদ্দিন, শেখ পাড়া, থানা ও জেলা-বগুড়ার হাতে তুলে দিয়েছিলেন, ৫,৫০,০০০/- (পাঁচ লাখ পঞ্চাশ হাজার) টাকা। মজনুকে তার বেকার জীবনের অসহায়ত্বের সুযোগে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীতে চাকুরি দেয়ার নামে ঐ বাহিনীর বগুড়া এলাকার সদস্য প্রতারক জাহিদুল উক্ত টাকা নিয়ে কেটে পড়ে। অর্থাৎ বিদেশী মিশনে পাড়ি জমায়। মজনু এখন সুদের উপর ও ধার কর্য করে নেয়া, উক্ত টাকার শোক ও পাওনাদারের যন্ত্রণায় মৃত প্রায়।

অসীম মজুমদার (২৫), পিতা-অন্তিম মজুমদার, নিশিন্দারা মড়িয়া গাবতলী বগুড়া, তার অসহায়ত্বের সুযোগে ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্স এর ফায়ার ফাইটার খাইরুল ইসলাম খোকন (৪০) (স্টেশন শেরপুর) তার নিকট থেকে চাকুরি দেয়ার নামে ৪,০০,০০০/- (চার লাখ) টাকা হাতিয়ে নেয়।

টাকা নেয়ার সময় খাইরুল ইসলাম খোকন, পিতা-নান্নু মিয়া, হাতিবান্দা মুল্লাপাড়া, গাবতলী, বগুড়া (খোকন ০১৭৬৮৯৩১৭৫৩), (নান্নু মিয়া ০১৭৪০০২২১৪২)। খোকন অসীম কে বলেছিলো, আমি ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তরের কর্মকর্তা আমি তোমাকে উক্ত অধিদপ্তরে নিয়োগ দিবো, এর জন্য তুমি আমাকে ৪,০০,০০০/- (চার লাখ) টাকা এনে দাও, এ টাকা আমাদের স্যারদেরও ভাগ দিতে হবে। টাকাগুলো নিয়ে নান্নু মিয়ার ছেলে প্রতারক ফায়ার ফাইটার খাইরুল ইসলাম খোকন আর কথা বলেনা। টাকা নেয়ার সময় বিশ্বাস অর্জনের জন্য খাইরুল, অসীমের পিতা-অন্তীম মজুমদার এর নামে ৪,০০,০০০/- (চার লাখ) টাকা একটি চেকও দিয়েছিলো। এ দুজন ক্ষতিগ্রস্থ যুবক সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট প্রতিকারের আকুল আবেদন জানিয়েছেন।

ক্যাপশন : অন্তিম মজুমার এর পুত্র অসীম মজুমদারকে ফায়ার ফাইটার হিসেবে চাকুরি দেয়ার আশ্বাস দিয়ে অসীমের ৪,০০,০০০/- (চার লাখ) টাকার বিপরীতে প্রতারক ফায়ার ফাইটার খাইরুল নিজে স্বাক্ষর করে ডাচ্ বাংলা ব্যাংক এর চেক নং ৭৩৩২৭৯৮ তাকে দিয়েছিলো, কিন্তু ব্যাংকে টাকা রাখেনি।

শেরপুরে কর্মরত প্রতারক ও
ফায়ার সার্ভিস কর্মী খাইরুল ইসলাম।

ক্যাপশন : ৫,৫০,০০০/- (পাঁচ লাখ পঞ্চাশ হাজার) টাকা হাতিয়ে নেয়ারপর অসহায় বেকার যুবক মজনুর রহমান কে দেয়া আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য প্রতারক জাহিদুল ইসলাম কর্তৃক দেয়া ব্যাংক চেক।

আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য প্রতারক জাহিদুল ইসলাম।

print

Facebook Comments

এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

আরও পড়ুন