৩৮তম বিসিএস-এর প্রিলিমিনারি টেস্ট পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে আগামীকাল শুক্রবার (২৯ ডিসেম্বর)। পরীক্ষায় প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে বিভিন্ন সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে পিএসসি।

এ ব্যাপারে গোয়েন্দা সংস্থা, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, হল প্রধান, হল পরিদর্শক, পিএসসির কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ বিভিন্ন পর্যায়ের সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে বৈঠক করেছে পিএসসি।

বাংলাদেশ সরকারি কর্মকমিশন (পিএসসি) সূত্র জানায়, দেশের প্রতিটি পরীক্ষা কেন্দ্রে দুটি করে মেটাল ডিটেক্টর দেয়া হয়েছে। পরীক্ষার প্রতিটি কক্ষে একটি করে ঘড়ি দেয়া হয়েছে। প্রশ্নফাঁস যাতে না হয়, সে জন্য বেশ কয়েক সেট প্রশ্নপত্র তৈরি করা হয়েছে।

পিএসসি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাদিক বলেন, ‘এবারের বিসিএস পরীক্ষাটি সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে অন্যবারের তুলনায় সর্বোচ্চ সতর্ক রয়েছি আমরা। ইতোমধ্যে পরীক্ষা সংশ্লিষ্ট প্রতিটি কমিটির সদস্যদের সঙ্গে আলোচনা করেছি। কীভাবে সুষ্ঠু পরীক্ষা নেয়া যায় ও পরীক্ষার প্রশ্নফাঁস না হয় সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছি। আশা করছি, একটি ক্লিন পরীক্ষা সম্পন্ন করতে পারবো।’

মোহাম্মদ সাদিক বলেন, ‘বিভিন্ন নিয়োগ পরীক্ষায় জালিয়াতির মাধ্যমে যারা প্রশ্নফাঁস করেছে তাদের কীভাবে ধরা যায়, সে সংক্রান্ত অভিজ্ঞতা ও জ্ঞানও নেয়া হচ্ছে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের কাছ থেকে।’

৩৮তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় অংশ নিতে তিন লাখ ৪৬ হাজার ৫৩২ জন প্রার্থী আবেদন করেছেন। এ পর্যন্ত অনুষ্ঠিত সবগুলো বিসিএস পরীক্ষার তুলনায় এবারই সর্বোচ্চ সংখ্যক প্রার্থী আবেদন করেছেন বলে জানা যায়।

স/এন

print

Facebook Comments

এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

আরও পড়ুন