এ.কে.আজাদ (জেলা প্রতিনিধি) লক্ষ্মীপুর : লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে শাহিনুর বেগমকে রাতভর গণধর্ষণ, মারধর অতঃপর চুল কেটে নির্যাতন করার অভিযোগে অভিযুক্ত প্রধান আসামী আবুল কালাম (আবু) প্রকাশ গাঁধা আবুকে এখনও গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। অপরদিকে নেক্কার জনক এ ঘটনার অন্যতম সহযোগী হারুন রয়েছে ধরাছোঁয়ার বাহিরে। এমনি অভিযোগ করে ভুক্তভোগী পরিবারের লোকজন সহ এলাকার সচেতন বিক্ষুব্ধ জনতা গত ২২শে নভেম্বর দুপুর ১২টার দিকে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানববন্ধন করেন। এ সময় চরম ক্ষোভে ফেটে পড়েছে অত্র এলাকার সকল শ্রেণী পেশার মানুষ। বিক্ষুব্ধরা নির্যাতনকারী তার সাবেক স্বামী আবুল কালাম ও তার সহযোগী হারুনকে অনতি বিলম্বে গ্রেফতার ও বিচারের দাবী জানান। এর আগে গত রোববার বিকালে ও সোমবার সকালে আলাদাভাবে তারা কমলনগর উপজেলার চরকালকিনি ও মিয়ার বাজারে বিক্ষোভ করেন। জানা গেছে, আবুল কালাম (আবু) কমলনগর থানা ও হাজিরহাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ সোর্স ও দালাল হওয়ায় পুলিশ তাকে গ্রেফতার করছেনা বলে অভিযোগ করেন এলাকাবাসী। উল্লেখ্য, গত ১৭ই নভেম্বর শুক্রবার সন্ধ্যায় কমলনগর উপজেলার তোরাবগঞ্জ এলাকা থেকে ভিকটিম শাহিনুর বেগমকে তার সাবেক স্বামী আবুল কালাম ও তার ২ সহযোগি মিলে অপহরণ করে একটি পরিত্যাক্ত ঘরে আটকে রেখে রাতভর পালাক্রমে ধর্ষণ, মারধর ও চুল কেটে নির্যাতন করে। পরে নির্যাতিত ওই নারীকে উদ্ধার করে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করে তার স্বজনরা। এ ব্যাপারে নির্যাতিতার মা নুর জাহান বেগম বাদী হয়ে শাহিনুর বেগমের সাবেক স্বামী আবুল কালাম ও তার ২ সহযোগিকে আসামী করে কমলনগর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। ভুক্তভোগী শাহিনুর জানায়, লক্ষ্মীপুরে ভাইয়ের বাসায় আসার উদ্দেশ্যে নিজ এলাকার মিয়ার বাজার থেকে সিএনজিতে ওঠে সে। এসময় ঐ এলাকার হারুন মোবাইল ফোনে ঐ আবুকে তার গাড়িটি ফলো করার গতিবিধি জানান দেয়। এর পরেই নারকীয় এই বর্বরতার স¤ু§খীন হতে হয়েছে তাকে। তবে এই মামলার অভিযুক্ত তোরাবগঞ্জ এলাকার সিরাজ মিয়ার পুত্র বাবুলকে গ্রেফতার করলেও মুল আসামী আবুল কালাম এবং তার সহযোগী হারুনকে অদ্যবধি পর্যন্ত গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

স/এষ্

print

Facebook Comments

এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

আরও পড়ুন