বীর রহমান :

গাজীপুরের অতি গুরুত্বপূর্ণ মাওনা-কালিয়াকৈর সড়ক। শিল্পাঞ্চলে সমৃদ্ধ গাজীপুরের শ্রীপুর ও পার্শ্ববর্তী ময়মনসিংহ বিভাগের হাজার হাজার মানুষ ও কয়েকশ শিল্পকারখানার যানবাহন প্রতিদিন উত্তরবঙ্গের সঙ্গে যোগাযোগে মাওনা-কালিয়াকৈর সড়ক ব্যবহার করেন।

এ সড়কটি কালিয়াকৈর হতে যমুনা বহুমুখী সেতুর মাধ্যমে উত্তরবঙ্গ, সাভার-আশুলিয়া হয়ে ও ধামরাইয়ের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করে আসলেও দীর্ঘ এক যুগ ধরে সংস্কার না হওয়ায় দিন দিন সড়কটি চলাচলের অযোগ্য হয়ে যাচ্ছে। এতে ওই সড়কের চলাচলরত বাস-ট্রাকগুলো প্রায় ৩০ কিলোমিটার ঘুরে যেতে হচ্ছে এবং গাড়িগুলো ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক ধরে চলতে গিয়ে প্রতিনিয়ত জয়দেবপুর ও চন্দ্রা মোড়ের যানজটের কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছে। ফলে জনদুর্ভোগে পড়ছেন কয়েক লাখ মানুষ।

গাজীপুর সড়ক বিভাগের তথ্যমতে, মাওনা-কালিয়াকৈর সড়কের মাওনা চৌরাস্তা থেকে সালদহ পর্যন্ত ১২ কিলোমিটার শ্রীপুর অংশের অপরদিকে সালদহ থেকে কালিয়াকৈর পর্যন্ত ২২ কিলোমিটার কালিয়াকৈর অংশের সড়কটি গাজীপুর সড়ক ও জনপথ বিভাগের অধীন। সড়কটির প্রস্থ ১২ ফুট থাকলেও ভেঙেচুরে ৫ থেকে ৬ ফুটে দাঁড়িয়েছে।

১৯৯৮ সালে এ সড়কটি পাঁকা করা হয়। এরপর রাস্তায় দু’একবার সংস্কার করা হলেও এক যুগ অতিক্রম হয়ে গেছে তাতে কোনো সংস্কার কাজ করা হয়নি। বরাদ্দ না থাকার অজুহাতে সড়কের সংস্কার করা হয়নি বলে জানিয়েছেন কর্তৃপক্ষ। সড়কটির শ্রীপুর অংশের অবস্থা সবচেয়ে শোচনীয় আর কালিয়াকৈর অংশের মেদিয়া শোলাই, নামা শোলাই, পাইকপাড়া, মজিদচালা বাজার, জাঁঠালিয়া বিট অফিস সংলগ্ন ও ফুলবাড়িয়া বাজার এলাকায় সড়কটি প্রায় চলাচলের অযোগ্য হয়ে গেছে। এ সড়কটির মাঝে মাঝে প্রস্থ এতই কম যে, দুটি পরিবহন পাশ কাটাতে গেলে দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকতে হয়।

কালিয়াকৈর উপজেলা ভূমি অফিসের উপ-সহকারী কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ বাছেদ জানান, তিনি মজিদের চালা বাজার হতে কালিয়াকৈর উপজেলা ভূমি অফিসে প্রতিদিন যাতায়াত করেন। এ সড়কের দূরাবস্থার জন্য যানবাহনে অতিরিক্ত সময় ও অর্থ ব্যয় হয়। মাঝে মাঝে যানবাহনের ঝাঁকুনিতে অসুস্থ হয়ে পড়তে হয় তাকে।

ফুলবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল হাকিম চমক নিউজকে বলেন, তার এলাকাসহ বিভিন্ন এলাকার লোকজনের কালিয়াকৈর উপজেলা সদরের সঙ্গে যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম এ সড়ক। কিন্তু সংস্কারের অভাবে এ সড়ক দিয়ে যাত্রীবাহী যানবাহন চলে না। ফলে বিভিন্ন সি এন জি অটোরিক্সায় এখন স্থানীয়দের একমাত্র ভরসা। আর রাস্তা খারাপের অজুহাতে তাঁরা হাতিয়ে নিচ্ছে অতিরিক্ত ভাড়া।

মাওনা হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দেলোয়ার হুসেন চমক নিউজকে বলেন, মাওনা-কালিয়াকৈর সড়কটি খুব গুরুত্বপূর্ণ। যে সকল বাস-ট্রাক জয়দেবপুর হয়ে উত্তরবঙ্গে যাতায়াত করে তারা এ সড়কটি ব্যবহার করলে জয়দেবপুর ও চন্দ্রা মোড়ের যানজট কমে যাওয়ার পাশাপাশি জ্বালানির সাশ্রয় হবে।

এ বিষয়ে গাজীপুর সড়ক ও জনপথের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী খায়রুল বাশার মোহাম্মদ সাদ্দাম বলেন, সড়কটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। জনদুর্ভোগ বিবেচনায় ইতোমধ্যে, সড়কটির বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। খুব শিগগিরই প্রকল্পের মাধ্যমে সড়কের কাজ শুরু হবে বলে জানা তিনি।

স/এষ্

print

Facebook Comments

এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

আরও পড়ুন