প্রশাসনের নাকের ডগায় চালায়, নারী পাঁচার, অর্থ লুট ও মাদক ব্যবসায় !

নিজস্ব প্রতিনিধি : পুরো নাম ভোলন চন্দ্র পাল। গ্রামের সাধারণ কৃষক থেকে কয়েক বছরে আঙ্গুল ফুলে হয়েছেন কোটি টাকার মালিক। ভাল মানুষের চেহারার আড়ালে লুকিয়ে আছে ঘৃণ্য এক অপরাধী। চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ থানার মান্দারতলী গ্রামের বাসিন্দা ভোলা চন্দ্র পালের এই কোটিপতি হবার রহস্য খুঁজতে চমক নিউজটিম নামে বিশেষ অনুসন্ধানে। তিন-মাসের অনুসন্ধানে ভোলা চন্দ্র পাল সম্পর্কে উঠে আসে চাঞ্চল্যকর তথ্য। তিন পর্বের ধারাবাহিক প্রতিবেদনের আজ প্রথম পর্ব।

চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ থানার মান্দারতলী গ্রামের টোগান চন্দ্র পালের ছেলে ভোলা চন্দ্র পাল বয়স ৪৮। তার একের পর এক অপরাধমূলক কর্মকান্ডে অতিষ্ঠ এলাকা-বাসী। গ্রামের বিভিন্ন নারীকে ভারতের পাঁচারের মধ্য দিয়ে ভোলার অপরাধকর্মকান্ডের হাতেখড়ি। অভিযোগ রয়েছে, নিজ গ্রাম ও এর আশেপাশের বৃষ্টি রানী দাস, মিম রানী দাস, কমলা দাস, পূর্ণিমা দাস সহ আরো অনেক মেয়েকে তিনি ভারতে পাঁচার করেছেন । নিজের প্রভাব বিস্তারের জন্য স্থানীয় প্রভাবশালী লোকজনের সাথে গড়ে তোলেন সখ্যতা। প্রশাসনের বেশ কিছু অসাধু কর্মকর্তাকে বিশেষ কায়দায় নিজের আয়ত্বে এনে নিজ গ্রাম ও এর আশেপাশে গড়ে তুলেছেন মাদকের ব্যবসা। স্থানীয় শ্রী শ্রী বাউল মহাশয় সেবা-শ্রম মন্দিরের সভাপতির পদে থেকে বিগত পাঁচ বছরে লুট করেছেন মন্দিরের বিপুল অর্থ।

স্থানীয়দের অভিযোগের সত্যতা যাচাই করতে চমক নিউজ টিম ভারতের বনগাঁ অবস্থিত চমক নিউজের পশ্চিমবঙ্গ ব্যুরো অফিসের সংবাদ দাতা অঞ্জন কান্তি দাস বিষয়টি অনুসন্ধান করে। তার অনুসন্ধানে উঠে আছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ জেলার গাইঘাটা থানায় ভোলন চন্দ্র পালের নামে কয়া, আঙ্গুলকাটা ও রামপুরা গ্রামে রয়েছে প্রায় ৭০ বিঘা সম্পত্তি। ভারতীয় একটি ব্যাংকে তার নামে রয়েছে বিরানব্বই লক্ষ টাকা। ভোলার বড় ছেলে প্রবাল পাল ভারতের নাগরিকত্ব দেখিয়ে তৈরি করেছেন পাসপোর্ট। বর্তমানে তিনি সৌদি-আরবে অবস্থান করছে। পশ্চিম বঙ্গের গাইঘাটা থানার রামপুর গ্রামেরবাসিন্দা অসিম চন্দ্র পাল জানান, কয়েক বছর আগেও ভোলা চন্দ্র পালের নামে তেমন কোন জমি ছিল না। শুনেছি তিনি বাংলাদেশের চাঁদপুর জেলায় কৃষিকাজ ও মাছ ধরে জীবন ধারণ করে। কিন্তু বর্তমানে আমাদের গ্রাম ও এর আশেপাশে তার ও তার ছেলে নামে প্রায় ৭০ বিঘা সম্পত্তি রয়েছে। অসৎ উপায়ে তিনিও ভারতের নাগরিকত্ব পেয়েছেন।

পশ্চিম বঙ্গ থেকে এ প্রতিবেদন পাওয়া পরে, চমক টিম আবার যায় চাঁদপুরের মান্দারতলি গ্রামে। এলাকা-বাসির সাথে ভোলন চন্দ্র পালের কথা জানতে চাইলে তারা ভয়ে আতকে ওঠে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন জানান, ভোলন চন্দ্র পাল ওরফে ভোলা এলাকায় তৈরি করেছে সন্ত্রাসী বাহিনী। গ্রামের অনেক মেয়েকে তিনি ভারতে পাঁচর করেছে। আত্মসাৎ করেছে মন্দিরের অর্থ।

ভোলা চন্দ্র পালের সাথে একাধিক বার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তিনি নানান অজুহাতে এড়িয়ে যান। তার ০১৭১৫১৬…৪৯ এই নম্বরে ফোন দিলে এ প্রতিবেদকের পরিচয় জানার জানার পর তিনি ফোন কেটে দেন।

গ্রামের লোকের সাথে কথা বলে আরো জানা যায়, ভোলার ছোট ছেলে অমিত চন্দ্র পাল দশম শ্রেণির ছাত্র হলেও নিজ এলাকার মাদক ব্যবসায় বাবাকে দিচ্ছে যোগ্য সহায়তা। মেয়ে ঋৃতিকা চন্দ্র পাল ও স্ত্রী রিপন রানী পাল বর্তমানের চাঁদপুরে অবস্থান করলেও এলাকা বাসির ধারণা যে কোন সময় তার ভারতে পাড়ি জমাতে পারে। মূলত একারনেই স্থানীয় মন্দিরের জমি বিক্রি ও সাধারণের টাকা আত্মসাৎ করার পাঁয়তারা করছে তিনি।

ভোলন চন্দ্র পাল বাংলাদেশর নাগরিক হয়ে কীভাবে ভারতে স্থায়ী নাগরিকত্ব পেয়েছেন আর গড়ে তুলেছে বিশাল সম্রাজ্য তা প্রকাশ হবে আগামী পর্বে।

স/এষ্

print

Facebook Comments

এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

আরও পড়ুন