নিজস্ব প্রতিনিধি : চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ থানার পূর্ব লাউ তলিতে অবস্থিত শ্রী শ্রী বাউল মহাশয় ঠাকুরের সেবা-শ্রমের তহবিল লুটের অভিযোগ উঠেছে ভোলন চন্দ্র পাল নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে। মন্দিরের সম্পত্তি গোপনে বিক্রি ফান্ডের টাকা আত্মসাৎ সহ বিভিন্ন অপকর্মের অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। মাতামতলী গ্রামে তার বাড়ি হলেও জোর পূর্বক মন্দিরের কমিটিতে নিজের নাম লেখান। মন্দিরের একাধিক ভক্তরা এ প্রতিবেদককে জানান, বিগত পাঁচ বছর তিনি মন্দিরের কোন হিসাব না দেখিয়ে ব্যক্তিগত কাজে সেই অর্থ ব্যবহার করেছেন। মন্দিরের ভিতরে বিভিন্ন সময় বহিরাগত সন্ত্রাসীবাহিনী এনে ত্রাসের সৃষ্টি করে সাধারণ ভক্তদের ভীতসন্ত্রস্ত করে নিজের স্বার্থ হাসিল করেছে। কয়েক বছর প্রচলিত নারায়ন পূজার সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ অনুষ্ঠান তিনি করতে দেননি।

ভক্তরা সবাই একত্রিত হয়ে গত ৮-১১-২০১৭ মন্দিরে এক সভার আয়োজন করে। যেখানে তার কাছে সব হিসাব চাওয়া হয়ে তিনি, হিসাব না দিয়ে রাগান্তীত হয় এবং সবাইকে অকথ্য ভাষায় গালাগালি করে ও বিভিন্ন হুমকি দিয়ে স্থান ত্যাগ করে।

পরে তিনি ফরিদগঞ্জ থানায় পলাশ চন্দ্র দাস, সজীব চন্দ্র দাস ও নিত্যন্দ দাসকে আসামি করে একটি সাধারণ ডায়েরি করে। অভিযোগের ভিত্তিতে আয়ু তদন্তে এসে সব অভিযোগ ভিত্তিহীন প্রমাণিত হতে তিনি চলে যান ও ভোলন চন্দ্র পাল (ভোলাকে) হুঁশিয়ার করে যান।

এলাকা-বাসী সাথে কথা বলে ভোলন চন্দ্র পাল সম্পর্কে নানা চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে আসে।

অতিতে তিনি অসামাজিক কাজে লিপ্ত অবস্থা ধরা পড়ে গ্রাম্য বিচারে ৫০,০০০/- টাকা জরিমানা দিয়েছেন। গ্রামের একাধিক মেয়েকে তিনি ভারতে পাচার করেছে বলেও অনেকে জানান। তাছাড়া তরুণ সমাজকে ধ্বংস করার জন্য তিনি সন্ত্রাসী বাহিনী গঠন করে এলাকায় ইয়াবা ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে।

অচিরেই ভোলন চন্দ্র পাল (ভোলা) কে আইনেই আওতায় আনতে না পারলে পূর্ব লাউ তলির পরিবেশ নষ্ট, যুব সমাজ ধ্বংস ও সংঘর্ষের আশঙ্কা করছে এলাকা-বাসী।

স/এষ্

print

Facebook Comments

এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

আরও পড়ুন