অনলাইন ডেস্ক

ডোনাল্ড ট্রাম্প ও কিম জং উনের মধ্যে পরমাণু অস্ত্র ইস্যুতে কথার লড়াই চলছে বেশ কয়েক মাস ধরেই। এবার সরাসরি উত্তর কোরিয়ায় স্বৈরাচারী শাসক কিম জং উনের প্রাসাদে ঢুকে পড়তে চলেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

হোয়াইট হাউজ সূত্রে খবর, আগামী নভেম্বরে দক্ষিণ কোরিয়া সফরে যাচ্ছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। সেই সফরকালেই দুই কোরিয়ার মধ্যস্থ অসামরিক এলাকায় ভ্রমণে করতে পারেন ডোনাল্ড ট্রাম্প।

জানা গেছে, ট্রাম্পের সফরের ব্যবস্থাপনার জন্য ইতোমধ্যে একটি দল পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে কোরীয় উপদ্বীপের ওই বিশেষ অঞ্চলে। বিশেষ দলে রয়েছেন ট্রাম্পের নিরাপত্তা ব্যবস্থায় থাকা কমান্ড-ইন-চিফ। কেবল দক্ষিণ কোরিয়া নয়, জাপান, চীন, ভিয়েতনাম সফরেরও যাচ্ছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। সফর শুরু হবে ২ নভেম্বর থেকে। আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞদের ধারনা কিমের কোলের কাছে এসে কিমকে কঠোর ভাষায় কোন বার্তা দিতে পারেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

উত্তর কোরিয়া নিয়ে কিছুদিন আগেই একটি কড়া বিবৃতি দিয়েছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি জানিয়েছিলেন, উত্তর কোরিয়ার ক্ষেত্রে “একমাত্র একটি জিনিসই কাজ করে”। তবে কী সেই জিনিসয তা নিয়ে মুখ খোলেননি মার্কিন প্রেসিডেন্ট৷। টুইট বার্তায় ট্রাম্প বলেন, প্রেসিডেন্ট ও কর্তৃপক্ষ উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে ২৫ বছর ধরে কথা বলছে। অনেক চুক্তি হয়েছে ও অনেক টাকা দেওয়া হয়েছে। কিন্তু কাজ হয়নি। কালি শুকিয়ে যাওয়ার আগেই চুক্তি অতিক্রান্ত হয়ে গিয়েছে। মাত্র একটি জিনিসই উত্তর কোরিয়ার ক্ষেত্রে কাজ করবে।

এর আগে প্রেসিডেন্ট বলেছিলেন, দরকার পড়লে উত্তর কোরিয়াকে “সম্পূর্ণ ধ্বংস” করে দিতে পারে আমেরিকা। উত্তর কোরিয়া পরমাণু বোমা পরীক্ষার ঘোষণার পরই একথা বলে ওয়াশিংটন। এই সপ্তাহের প্রথমে মার্কিন সেনার উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন ট্রাম্প। তখন তিনি বলেন, “এটা ঝড়ের আগে শান্ত অবস্থা। ” বিষয়টি বিস্তারিত জানতে চাইলে তিনি বলেন, “আপনারাই খুঁজে নিন

স/মা

print

Facebook Comments

এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

আরও পড়ুন