অনন্যা হীরা , চমক নিউজ : ষড়যন্ত্র মূলক মামলায় এক সময়ের বঙ্গবন্ধুর রাজপথের সৈনিক ও জননেত্রী ও শেখ হাসিনার আজন্ম ভক্ত গফরগাঁয়ের ইলিয়াস (৬০), ১৬ বছর ময়মনসিংহ কারাগারের ধুঁকে ধুঁকে মরছে। এই ইলিয়াসের বাড়ী গ্রাম- বাগুয়া, থানা- গফরগাঁও, জেলা- ময়মনসিংহ। ইলিয়াস একজন সহজ- সরল এবং কর্মজীবি মানুষ। তিনি টেইলার মাস্টার ছিলেন। এছাড়াও তিনি বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গবন্ধুর কন্যার রাজপথের আজন্ম সৈনিক বলে এলাকাবাসী জানান। সাহেরা খাতুন (৫৫) স্বামী মোঃ আব্দুল আজিজ ও বিলকিস নাহার (৩০) সর্ব সাং- হরিপুর, নুরাপাড়া, থানা- গফরগাঁও, জেলা- ময়মনসিংহ উভয়ই থানায় উপস্থিত হয়ে ১৬ বছর পূর্বে মোঃ ইলিয়াস’ এর বিরুদ্ধে গফরগাঁও থানার মামলা নং-৫, তারিখ- ১৩/৭/৯০ এবং বিশেষ ট্রাইব্যুনাল মামলা নং- ১৪৩/৯৫ দঃ বিঃ দাখিল করে। উল্লেখ্য যে, অত্র এলাকার মেম্বার হওয়ার সুবাদে মৃত ইসলাম কাজী, পিতা- মৃত আক্কাস কাজী সাং- ষোল হাসিয়া, থানা- গফরগাঁও, জেলা- ময়মনসিংহ , ষড়যন্ত্রপূর্বক নির্দোষ ও সরল ইলিয়াসকে উক্ত মামলার আসামী করেন। মামলাটিতে সাহেরা খাতুন ও তার মেয়ে বিলকিস নাহার সম্পূর্ন মিথ্যা একটি ঘটনাকে সাজিয়ে জনৈক ইসলাম কাজী’র সহায়তায় তাকে কারাবন্দী করেন। ঐ মুহুর্তে ইলিয়াস তিন সন্তানের জনক । অত্যন্ত দুঃখ কষ্টের মধ্য দিয়ে ১৬ বছরে তাদের বড় করেছেন। ইলিয়াসের স্ত্রী “বর্তমানে আল্লাহ’র রহমতে আমরা বেচে আছি উক্ত আসামীদের এই মিথ্যা এবং অপরাধমূলক কর্মকান্ডের মাধ্যমে আমরা ১৬ বছর যাবৎ পিতৃ¯েœহ হতে বঞ্চিত থেকেছি” বলে তাদের মেয়ে মীনা জানান। এই ১৬ বছর কারাযাপনের ফলে আমার পিতা মানসিকভাবে বিপর্যস্ত ও মুমূর্ষ অবস্থায় আছেন। আমাদের পর্যাপ্ত অর্থবল ও লোকবল না থাকায় আমার বাবার বক্তব্য সঠিক স্থানে বলতে না পারায় আমরা ন্যায়বিচার পাইনি। সে সময় বিলকিস নাহার ঐ মামলা করে বিদেশে পালীয়ে যান। ইসলাম কাজী কৌশলে এ মামলায় আমার বাবাকে সময়মত হাজির হতে দেন নি। নিজেই হাজিরা দিয়ে বাবার বিরুদ্ধে মিথ্যা তথ্য উপস্থাপন করেন। ফলে তার অনুপস্থিতিতে এই মামলার রায় হয়েছিল। আমার নিরাপরাধ ও হতভাগ্য পিতা জীবিত থেকে আজ প্রায় মৃত। তাছাড়া মামালার ঘটনার সময় আমার বাবা মানসিক ভাবে অসুস্থ্য ছিলেন। ঘটনার সাথে তিনি জড়িত ছিলেন না। আজ আমার বাবার অনুপস্থিতিতে আমরা ১ বোন ২ ভাই বড়ই অসহায়। শিশুকাল থেকে আমরা পিতা থেকেও এতিম। আপনার সদয় আদেশ ও সিন্ধান্তেই বঙ্গবন্ধুর এক সৈনিক বৃদ্ধ বয়সে সন্তানদের কাছে এসে বাকি জীবন কাটাতে পারেন। ইলিয়াসের বড় মেয় মিনা তাজ বেগম বলেন, ষোল কোটি মানুষের নেত্রী জননেত্রী প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমাদের প্রার্থনা ‘বঙ্গবন্ধু ও তার কন্যা’র একজন আজন্ম রাজপথের সৈনিককে উক্ত মিথ্যা মামলা হতে আগামী মহান বিজয় দিবস-২০১৬ উপলক্ষ্যে অথবা অবিলম্বে যে কোন দিন, ১৬ বছর কারাযাপনের পর মুক্তি দানের আকুল আবেদন জানাচ্ছি”।

স/ এষ্

 

         
print
Facebook Comments

এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

আরও পড়ুন