হাফিজুর রহমান হৃদয়, নাগেশ্বরী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি

কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে নাখোঁজ হওয়ার ৩দিন পর ব্যবসায়ী জহুরুলের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পুলিশ সূত্র জানায়, উপজেলার আশার মোড় এলাকার মইনুদ্দিনের ছেলে জহুরুল শুক্রবার সকালে বাড়ি থেকে বের হয়ে আর ফেরেনি। তার ব্যবহৃত মোটর সাইকেল উপজেলার পৌর এলাকার পানাকুড়ি জোরা ব্রিজের উপর পাওয়া  গেলে  তার বাড়িতে খবর দিলে এলাকাবাসী, নাগেশ্বরী থানা পুলিশ ও রংপুর ফায়ার সার্ভিস কর্মী জোরা ব্রিজ ও ঠুটা পাইকর ব্রিজের নিচে খোঁজাখুঁজি করেও তাকে খুঁজে পায়নি। । ঘটনায় থানায় একটি সসাধারণ ডায়েরি করে নিখোঁজের স্ত্রী। পরে ওইদিনই ছাফিয়া নামের একজনকে গ্রেপ্তার করে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। পরদিন শনিবার থানায় মামলা হয়। মামলা নং-৩৪। তারিখ ৩০.০৯.২০১৭।

মামলার পরদিন রোববার জহুরুলের ডিলারশিপের ভ্যান চালক জাগাঙ্গীরকে গ্রেপ্তার করে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে স্বীকারোক্তি দেয়। তার কথা অনুযায়ী সোমবার রাত সাড়ে ১২টায় ভ্যান চালক জাহাঙ্গীরের সাতানী পাড়াস্থ ভারাটে বাসার মাটির নিচ থেকে মরদেহ উদ্ধার করে সকালে ময়না তদন্তের জন্য কুড়িগ্রামে মর্গে পাঠানো হয়। পরে রোজিনা নামের আরও একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। ধৃতদের কুড়িগ্রাম কোর্টে পাঠায় পুলিশ। নিহত জহুরুল বাড়ি থেকে একটু দূরে ভাড়া বাসায় থাকতো এবং কলেজ মোড়ে তার ওষুধের ফার্মেসি   ও একাধিক কোম্পানির ডিলারশিপ নিয়েছিল বলে  জানা গেছে। এ বিষয়ে নাগেশ্বরী থানার ওসি (তদন্ত্ব) সাইফুল ইসলাম বলেন, মামলা হয়েছে। আমরা মূল আসামীদের গ্রেপ্তার করেছি। তাদেরকে কোর্টে পাঠানো হয়েছে। তারা কোর্টে দোষ স্বীকার করেছে। লাশ ময়না তদন্তে রয়েছে। তদন্ত রিপোর্ট পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

স/মা

print
Facebook Comments

এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

আরও পড়ুন