নবাবগঞ্জ-দোহার (ঢাকা) প্রতিনিধি: স্বাধীনতার ৪৬ বছর অতিক্রম করলেও রাজধানীর অতি নিকটে অবস্থিত দোহার-নবাবগঞ্জের বাসিন্দারা ঢাকা মহানগরসহ আশেপাশের জেলায় সড়ক পথে যাতায়াতে ভোগান্তি পোহাচ্ছে প্রতিনিয়ত। ৩৫কি.মি. রাস্তায় ভাড়া নেয়া হয় ৭৫টাকা। কয়েকটি বাস সার্ভিস যাত্রীদের জিম্মি করে অতিরিক্তি ভাড়া আদায় করছে এমন অভিযোগ দীর্ঘদিনের। সম্প্রতি একটি নতুন সার্ভিস এ রাস্তায় আসায় বান্দুরা গুলিস্থান ভাড়া কমছে জনপ্রতি ১৫ টাকা। এ অবস্থায় দোহার নবাবগঞ্জবাসীর জিম্মিদশা কাটবে কিনা এমন প্রশ্ন সাধারণ মানুষের।

এই অঞ্চলের যাত্রীদের অভিযোগ, দীর্ঘদিন বান্দুরা-নবাবগঞ্জ ঢাকা সড়ক একটি প্রভাবশালী পরিবহন মালিক চক্রের হাতে জিম্মি হয়ে রয়েছে। এর ফলে তারা ইচ্ছা অনুযায়ী টিকিট কাউন্টার, সরকারী জায়গা দখল করে যাত্রী ছাউনি নির্মান, মন মতো স্টপেজ করে সাধারণ যাত্রীদের হয়রানী করে চলেছে বহুকাল। বাস মালিক পরিবহন সমিতির আড়ালে তারা জনগণের টাকা লুটেপুটে খাচ্ছে। অনেক বাসের কাগজ , রোড পারমিট নেই ,ইন্সুরেন্স নেই, ড্রাইভিং লাইসেন্স বিহীন ড্রাইভার- অহরহ ঘটছে দূর্ঘটনা। নিভে যাচ্ছে তাজা প্রাণ। এছাড়া আহত হয়ে কোনমতে বেঁচে থাকতে হচ্ছে।
নবাবগঞ্জ-ঢাকা সড়কে নিয়মিত যাত্রী পাড়াগ্রামের বাসিন্দা মো. পারভেজ আনোয়ার বলেন, ঢাকায় একটি প্রাইভেট ক্লিনিকে চাকুরীর সুবাদে পায় বাসে যাতায়াত করতে হয় আমাকে । কিন্তু দুঃখের বিষয় এন-মল্লিক পরিবহন নামে একটি পরিবহন সংস্থা সিটিং সার্ভিসের নামে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করে চলেছে বছরের পর বছর। প্রশাসন এব্যাপারে বিভিন্ন সময় পদক্ষেপ নিলেও কোনো কাজে আসছে না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শ্রমিক নেতা মুঠোফোনে জানান, কতিপয় বাস মালিক কিভাবে বান্দুরা-নবাবগঞ্জ ঢাকা সড়ক দখল করে একা পরিবহন ব্যবসা করতে চায় তা বোধগম্য নয়।

আবার নতুন কোন পরিবহন মালিকরা এই সড়কে পরিবহন ব্যবসা করতে চাইলেও তাদের যানবাহন প্রবেশ করতে বাধা ভাংঙচুর এবং বিভিন্ন ভূয়া মামলা দিয়ে নাজেহাল করার ইতিহাস রয়েছে। এমন কি বাংলাদেশ রাষ্ট্রীয় সড়ক পরিবহন সংস্থা (বি.আর টিসি) বাসও চলতে দেয়া হয়নি। যার কারনে সরকারি আধা-সরকারি অফিসের কর্মচারী, স্কুল ,কলেজের ছাত্রছাত্রীসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষের সাথে পরিবহন সেবার নামে প্রতারনা ও হয়রানী করে যাচ্ছে বছরের পর বছর।

সম্প্রতি নবাবগঞ্জ দোহার, ফরিদপুরের চরভদ্রাসন, মানিকগঞ্জের সিংসাইর উপজেলা মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখাঁন এলাকার যাত্রীসাধারনের দাবীর প্রেক্ষিতে এই অঞ্চলের মানুষের দীর্ঘদিনের দূর্ভোগ লাঘবে নবকলি নামে একটি পরিবহন সংস্থা নবাবগঞ্জ ঢাকা গুলিস্থান সড়কে তাদের পরিবহন ব্যবসা শুরু করেছে। যাদের গাড়ির বহরে যোগ হয়েছে প্রায় ৩০ টি মিনিবাস।এ সার্ভিসটি ভাড়া নির্ধারণ করেছে ৬০টাকা। পক্ষান্তরে এন মল্লিক পরিবহন একই সড়কে ভাড়া আদায় করছে ৭৫টাকা।
এব্যাপারে নবকলি পরিবহনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মফিজুল ইসলাম বলেন , আমরা সেবা ও ব্যবসা দুটোই করতে চাই। যাত্রীদের সাথে প্রতারনা নয়।
নবাবগঞ্জ উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা শাকিল আহমেদ বলেন, পরিবহন খাতে নৈরাজ্য ঠেকাতে ভ্রাম্যমান আদালতসহ নানা আইনী প্রক্রিয়া গ্রহণ করা হয়েছে।

স/শা

print

Facebook Comments

এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

আরও পড়ুন