স্বপন দাস, আগৈলঝাড়া
চেতনানাশক খাইয়ে অজ্ঞান করে এক কলেজ ছাত্রীকে প্রেমিক ও তার বন্ধুদের বিরুদ্ধে এক কলেজ ছাত্রিকে গণধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই ছাত্রীকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় অভিযুক্তর বাবা-মাকে আটক করেছে পুলিশ।
পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, আগৈলঝাড়া উপজেলার গৈলা ইউনিয়নের কালুপাড়া গ্রামের বাসিন্দা ও বরিশাল মহিলা কলেজের অনার্স পডুয়া ওই ছাত্রীর সঙ্গে গৌরনদী উপজেলার খাঞ্জাপুর ইউনিয়নের বাকাই গ্রামের রাজ্জাক আকনের ছেলে রিফাত আকনের (২২) প্রেমের সম্পর্ক ছিল। এর সূত্র ধরে রিফাত বিয়ের কথা বলে ওই ছাত্রীকে শনিবার বিকেলে মাদারীপুরের মাইচপাড়ার গ্রামের একটি বাগানে বেড়াতে নিয়ে যায়। একপর্যায়ে ছাত্রীকে চেতনানাশক ওষুধ খাইয়ে অচেতন করে রিফাত আকন ও তার তিন বন্ধু বন্ধু মিলে ধর্ষণ করেন। পরে ওই ছাত্রী গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে রিফাত ও তাঁর বন্ধুরা মিলে ধর্ষিতাকে কালকিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রেখে পালিয়ে যায়। পরে রিফাতের বাবা-মা ঘটনা জানতে ওই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যান। এ সময় কালকিনি থানার পুলিশ তাঁদের আটক করে। কালকিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) একরামুল ইসলাম বলেন, ‘হাসপাতালে তাকে অচেতন অবস্থায় পেয়েছি। তাকে চেতনানাশক কোনো ওষুধ খাওয়ানো হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ওই শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের আলামত পাওয়া গেছে। তার প্রাথমিক চিকিৎসা চলছে।’ কালকিনি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কৃপাসিন্ধু বালা বলেন, কলেজছাত্রী ধর্ষণের ঘটনায় রিফাতের বাবা-মাকে আটক করা হয়েছে। ছাত্রীর পরিবার অভিযোগ দিলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

স/এষ্

print

Facebook Comments

এই নিউজ পোর্টালের কোনো লেখা কিংবা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

আরও পড়ুন