দক্ষিন চরমশুরা গ্রামের ব্রিজটির বেহাল দশা

দক্ষিন চরমশুরা গ্রামের ব্রিজটির বেহাল দশা

এম এম রহমান : মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার চরকেওয়ার ইউনিয়নের দক্ষিন চরমশুরা গ্রামের ব্রিজটির বেহাল দশায় ভোগান্তিতে সাধারন যাত্রী ও পরিবহন চালকরা। ব্রিজটির ৭০ শতাংশ রেলিং ধসে গেছে। ব্রিজটির মাঝখানে রেলিং এর চিহ্নও নেই। ব্রিজটির দু”পাশের ঢালেও কাঁচা মাটির খানাখন্দ।

ব্রিজটিতে উঠতে অটো রিক্সা কিংবা যেকোন পরিবহন পড়েন ভোগান্তিতে। ঝুঁকি নিয়ে বহুদিন ধরে এই ব্রিজটি দিয়ে চরাঞ্চলের দক্ষিন চরমশুরা, আলিরটেক, ঢালিকান্দি, কাউয়াদি, জাজিরা, সিকদারকান্দি, বকচর সৈয়দপুরসহ ১৫টি গ্রামের প্রায় ৩০ হাজার মানুষ। গ্রামের অভ্যন্তরিন গ্রামগুলোতেও সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে ব্রিজটি দ্রুত সংস্কার করার দাবি জানিয়েছে স্থানীয়রা।

www.linkhaat.com

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, দক্ষিন চরমশুরা কমিউনিটি ক্লিনিক সংলগ্ন ব্রিজটির অবস্থান। একটু এগুলেই আলিরটেক বাজার। এই বাজারের রাস্তাটি দিয়েই চলাঞ্চলের লোকজন নিয়মিত শহরে যাতায়াত করে। ব্রিজের দু”পাশের সংযোগ সড়কেও ব্যাপক খানাখন্দ। যেকোন পরিবহন এই ব্রিজটি দিয়ে চলাচলে করছে ঝুঁকি নিয়েই। এতে করে একটি গাড়ী ব্রিজে উঠলে অপরপ্রান্তে দাঁড়িয়ে থাকতে হয় অন্যান্য পরিবহনগুলোকে।

স্থানীয় বাসিন্ধা নজরুল জানান, এই ব্রিজটি বহু দিন ধরে এভাবে পড়ে আছে। রেলিংগুলো নেই বললেই চলে। ব্রিজটি সরু হওয়ায় দু”পাশে গাড়ির চাকায় কাঁচা সড়কে খানা খন্দের সৃষ্টি হয়েছে। দ্রুত এটাকে মেরামত করা দরকার। অন্যথায় যেকোন সময় ঘটতে পারে দূর্ঘটনা।

গাড়ী চালক শামীম জানান, এই ব্রিজটির পাশাপাশি আরো বেশ কয়েকটা ব্রিজ ঝুঁকিপূর্ন। দু”পাশের সংযোগ সড়কে খানাখন্দ। ব্রিজে উঠতে গেলে যাত্রী নামিয়ে ব্রিজে উঠতে হয়। দ্রুত এটাকে মেরামত করা প্রয়োজন।

এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী মো: রফিকুল হাসান চমক নিউজকে বলেন, যেসব ব্রিজের রেলিং ধসে গেছে সেগুলোর তালিকা করা হয়েছে। প্রজেক্ট সাপোর্ট প্রকল্পের মাধ্যমে ধসে পড়া ব্রিজগুলোকে দ্রুত সংস্কার করার উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে।

স/এষ্

Print Friendly, PDF & Email
Spread the love