কবরী পরিচালিত ছবির সঙ্গীত পরিচালক সাবিনা

ইমরুল শাহেদ : কোকিল কন্ঠী গায়িকা হিসেবে সুপরিচিত সাবিনা ইয়াসমিন ক্যারিয়ার শুরুর ৫৪ বছর পর সঙ্গীত পরিচালক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করলেন।

তিনি ১৯৬৭ সালে ‘আগুন নিয়ে খেলা’ ছবির গান দিয়ে শিল্পী হিসেবে ক্যারিয়ার শুরু করেন। জহির রায়হান পরিচালিত এই ছবিটির সঙ্গীত পরিচালক ছিলেন আলতাফ মাহমুদ।

www.linkhaat.com

গানের কথা ছিল ‘মধু জোছনা দিপালি।’ সাবিনা ইয়াসমিনের পরের গান হলো ‘একটি পাখি দুপুরে রোদে সঙ্গীহারা একা।’ তবে ‘নতুন সুর’ ছবিতে তিনি প্রথম গান করেন শিশু শিল্পী হিসেবে। এরপর আর তাকে পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। ঢাকার চলচ্চিত্রের সঙ্গীত জগতের জীবন্ত কিংবদন্তিই বলা যায় তাকে।

সঙ্গীত পরিচালক হিসেবে তার অভিষেকও হলো আরেক জনপ্রিয় মুখ, মিষ্টি মেয়ে হিসেবে যিনি খ্যাত, কবরী পরিচালিত অনুদানের ছবি ‘এই তুমি সেই তুমি’ ছবিতে। সাবিনা ইয়াসমিনের সঙ্গীত পরিচালনায় প্রথম রেকর্ড হওয়া গানটি হলো ‘দুটি চোখে ছিল কিছু নীরব কথা, তুমি ফোটালে সেই চোখে চঞ্চলতা।’ মোহাম্মদ রফিকুজ্জামানের লেখা কথায় সুর দিয়ে তিনি নিজেই গানটিতে কন্ঠ দিয়েছেন।

পর্দায় গানটিতে ঠোট মেলাবেন কবরী। একজন সঙ্গীত শিল্পীর জীবনে এতোটা অন্তর্লীন মিল এদেশের কারো ক্ষেত্রে ঘটেছে বা ঘটবে কিনা তা বলা যায় না। নায়িকা হিসেবে কবরী এই সঙ্গীত শিল্পীর অনেক গানেই ঠোট মিলিয়েছেন। বিশেষ করে রংবাজ ছবির ‘সে যে কেন এলো না, কিছুই ভালো লাগে না…’ গানটি আজো লোকের মুখে মুখে ফেরে। এই বয়সে এসেও কবরী ঠোট মেলাবেন সাবিনার গানেই।

গানটি গাওয়ার পর সাবিনা ইয়াসমিন গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘আমি কখনো ভাবতেও পারিনি সুরকার হিসেবে কাজ করব। আমার এতো কাছের একজন মানুষ কবরী, তিনি যখন প্রস্তাব দিলেন, তখন আগ্রহ তৈরি হলো। শিল্পীদের দিয়ে আমার সুরে গান গাওয়াবো, নিশ্চয়ই একটা নতুন অভিজ্ঞতা হবে।’

পাঁচ দশক ধরে আধুনিক বাংলা গান, দেশাত্মবোধক, চলচ্চিত্রসহ বিভিন্ন মাধ্যমে প্রায় ১৬ হাজার গান গেয়ে সাবিনা ইয়াসমিন নিজেকে নিয়ে গেছেন অনন্য উচ্চতায়।

এখনো সমানভাবে গেয়ে যাচ্ছেন। মাত্র ৭ বছর বয়সে স্টেজ প্রোগ্রামে প্রথম অংশ নেন এই শিল্পী। এই তুমি সেই তুমি ছবির ছবির গানগুলো লিখেছেন মোহাম্মদ রফিকুজ্জামান ছাড়াও গাজী মাজহারুল আনোয়ার ও কবরী। অনুদানের এ ছবিতে প্রধান চরিত্রে থাকছেন কবরী নিজেই।

সূত্র : আমাদের সময় ডট কম

স/ এষ্

Print Friendly, PDF & Email
Spread the love