নওগাঁর বদলগাছীতে ইউপি চেয়ারম্যানকে জনসম্মুখে লাঞ্চিত করলেন এএসপি!!

বদলগাছী (নওগাঁ) প্রতিনিধি : নওগাঁর বদলগাছীতে করোনা প্রতিরোধে জনসচেতনতার সময় এক ইউপি ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানকে লাঞ্চিত করার অভিযোগে উঠেছে মহাদেবপুর-বদলগাছী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু সালেহ মোঃ আশরাফুল এর বিরুদ্ধে। বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার ভান্ডাপুর বাজার চারমাথা মোড়ে এ লাঞ্চিতের ঘটনা ঘটেছে। ভারপ্রাপ্ত ইউপি চেয়ারম্যান হলেন শাহিনুর ইসলাম স্বপন। তিনি বদলগাছী উপজেলার কোলা ইউনিয়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত ইউপি চেয়ারম্যান।

www.linkhaat.com

জানা যায়, চেয়ারম্যান শাহিনুর ইসলাম স্বপন কোলা বাজারে ত্রান বিতরন শেষে ভান্ডাপুর বাজারে এসে দোকানীদের অপ্রয়োজনীয় দোকান বন্ধ রাখাসহ অযথা ঘুরাঘুরি নিষেধ করে পাশে ইউনিয়ন পরিষদে ফিরছিলেন। এমন সময় বাজারের চারমাথা মোড়ে পুলিশের গাড়ি আসে। এ গাড়িতে মহাদেবপুর-বদলগাছী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু সালেহ মো: আশরাফুল আলম ও বদলগাছী থানার অফিসার ইনচার্জ চৌধুরী জুবায়ের আহাম্মেদ ছিলেন। পুলিশের গাড়ি দেখতে পেয়ে চেয়ারম্যান এগিয়ে গিয়ে সালাম দেন। কিন্তু অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আশরাফুল আলম সালামের উত্তর না দিয়ে তিনি চেয়ারম্যানকে গালিগালাজ শুরু করেন।

এভাবে গালিগালাজ করতে দেখে ওসি বলেন স্যার উনি এখানকার স্থানীয় দ্বায়িত্ব প্রাপ্ত চেয়ারম্যান। এতে করে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আশরাফুল আলম আরও রাগান্বিত হয়ে চেয়ারম্যানের মোটরসাইকেলের সামনে প্যানেল চেয়ারম্যান কোলা ইউপি লেখা স্টিকার লাগানো উইনসেট ভেঙ্গে ফেলে চাঁকার হাওয়া ছেড়ে দেয়ার জন্য কনস্টেবলকে বলেন। পরে ওসির অনুরোধে তা বন্ধ হয়।গাড়ি থেকে এ এস পির সাথে কথা বলার কারনে বন্ধ থাকা অবস্থায় বাইকটি চেয়ারম্যানকে ঠেলিয়ে নিয়ে যেতে বাধ্য করেন।

স্থানীয়রা জানান, সার্কেল এএসপি আশরাফুল আলমের এই ইউনিয়নে অনেক আত্মীয় আছে। সেই কারনে ৫১ লাখ টাকা দূনীর্তির কারণে ক্ষমতাচ্যুত সাবেক চেয়ারম্যানের সঙ্গে হয়তো সখ্যতার কারনে প্রভাবিত হয়ে এমন আচরন করতে পারেন। জনসম্মুখে একজন স্থানীয় চেয়ারম্যানের সঙ্গে পুলিশের এমন আচরণের তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশসহ এর বিচারের দাবী জানিয়েছে ইউনিয়নবাসী।

এ বিষয়ে ইউপি সদস্য হারন আর রশীদ বলেন, দেশের এই পরিস্থিতিতে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাহিরে বের হয়ে আমাদের রাত-দিন কাজ করতে হচ্ছে। মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ত্রান পৌছানোসহ তালিকা প্রস্তুত করতে হচ্ছে। আর সে কাজ করতে গিয়ে জনসম্মুখে যদি লাঞ্চিত হতে হয় তাহলে এর চেয়ে দুঃখজনক আর কি হতে পারে। আমি সকল ইউপি সদস্যদের পক্ষে এর তীব্র প্রতিবাদ জানায়।

এ বিষয়ে চেয়ারম্যান শাহিনুর ইসলাম স্বপন বলেন, আমি মোটেও কল্পনা করিনি জনসম্মুখে এমনভাবে লাঞ্চিত হতে হবে। আমার তো কোন অপরাধ ছিলনা যে তিনি এমন আচরন করবেন। যেহেতু এলাকায় তার অনেক আত্মীয় আছেন। সেজন্য সাবেক চেয়ারম্যানের সঙ্গে সখ্যতার কারণে এমন আচরন করেছে বলে আমার মনে হচ্ছে।

মহাদেবপুর-বদলগাছী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু সালেহ মোঃ আশরাফুল আলম মুঠো ফোনে জানান, গতকাল আমি জনসচেতনতায় দয়িত্ব পালন করতে গিয়ে ভান্ডারপুর মোড়ে ওই চেয়ারম্যান রেজিষ্ট্রেশন বিহীন মটরসাইকেলের উইনসেডে প্যানেল চেয়ারম্যান লেখা দেখে তাকে দাড় করিয়ে বলা হয় ওই লেখাটা সরিয়ে ফেলুন এবং বাইকটির শিঘ্রই রেজিষ্ট্রেশন করিয়ে নেন। আমি তাকে কোনভাবেই লাঞ্চিত করিনাই। আমি ওই ইউনিয়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ইনি হয়েছে এটা জানতাম না। পূর্বে ওই ইউনিয়নের যে চেয়ারম্যান ছিল তার সঙ্গে আমার পরিচয় ছিল।

এ বিষয়ে নওগাঁ পুলিশ সুপার প্রকৌশলী আব্দুল মান্নান মিয়া বলেন, শুধু জনপ্রতিনিধি কেন প্রত্যেক মানুষেরই আত্মমর্যাদা আছে। অবশ্যই আমি বিষয়টি তদন্ত করে দেখব।

স/এষ্

700
Print Friendly, PDF & Email