ড্রেসিং রুমে দলাদলি তবুও যে একাদশ আজ মাঠে নামাবে বাংলাদেশ

রাহুল রাজ : চট্টগ্রামে নিজেদের নাকটা কেটে ইতোমধ্যে ব্যাকফুটে বাংলাদেশ। দলের সবাই নিজেদের ঘায়ে মলম লাগাতে ব্যস্ত।

ভক্তরা টাইগার বাহিনীর উপর বেশ চটে আছে। ঘরের মাঠে টি-২০ ক্রিকেটের টিকিটের দাম যখন ১০০ টাকা হয় তখন আর বুঝতে বাকি থাকে না ভক্তরা কতটা চটেছে। তাদের আবার মাঠ মুখো করতেই বিসিবি টিকিটের দাম কমাতে বাধ্য হয়েছে। ঘরের মাঠে দর্শক শূণ্য খেলা হলে সমালোচকেরা বাংলাদেশকে নিয়ে সমালোচনা করতে কোনই ছাড় দেবে না।

কাগজে কলমে বাঘ নামের বাংলাদেশের প্রতিটি খেলোড়ার বর্তমানে বেশ চাপে আছে। ক্যারিয়ারের উপর হুমকি ঘাড়ে নিশ্বাস ফেলছে। একটু এদিক ওদিক হলেই জাতীয় দলের দরজা বন্ধ হয়ে যাবে অনেকের জন্য।

এমন নানান সমিকরণ নিয়ে আজ মিরপুর শেরে-বাংলা স্টেডিয়ামে ম্যাচটি শুরু হবে সন্ধ্যা ৬ টা ৩০মিনিটে বাংলাদেশ মুখোমুখি হবে জিম্বাবুয়ের। চট্টগ্রামে রশিদের বাকে নির্বাক হয়ে সাকিব বাহানা দিয়েছিল নানা ভাবে।

পাড়ার ক্রিকেটকে হার মানিয়ে ব্যাটিং স্থান পরিবর্তন করে সাকিব নতুন চমক দিতে গিয়ে সম্পূর্ণ ব্যর্থ। দলের ভিতর বর্তমানে তিন দলে বিভক্ত হয়ে গেছে। অতি সিনিয়র মধ্যম আর নবাগত। ‘দল জেতানোর চেয়ে নিজের জন্যই খেলো’ এই নীতি চলছে বর্তমানে দলের ভিতর।

দল সাজাতে নির্বাচকদের সাথে দলের অনেক জ্যেষ্ঠ সদস্যকে মনকালাকালি করতে হচ্ছে। আফগানিস্তানের বিপক্ষে টেস্টে ২২৪ রানের বিশাল পরাজয়ের পর সমালোচনায় সিক্ত দেশের ক্রিকেটার ও বোর্ড কর্মকর্তারা ৷ তাই ত্রিদেশীয় সিরিজটা জিতে সমালোচকদের মুখ বন্ধ করতে চাইবে ক্রিকেটাররা।

কিন্তু সেই চাওয়ার উপর ক্রিকেট প্রেমীরা বিশ্বাস করতে পারছে না। কেউই আর আগের মত বাজি ধরে বলতে পারছে না আজ টাইগারেরা জিতবে। বাংলাদেশ টিমের এই ছন্দ পতনের পেছনে দলের দলাদলীকে দায়ি করছে অনেকে।

আবার সাকিবের অধিনায়কত্ব নিয়েও আছে অনেক প্রশ্ন? উত্তর ও দর্শকদের জানা কিন্তু বিসিবি চাইছে পঞ্চপান্ডব দিয়েই অধিনায়কের চেয়ারটা একটু গরম করতে। অতিতেও সাকিবকে অধিনায়ক করা হয়েছিল কিন্তু দল জিতাতে না পারার অজুহাতে সেই সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করতে হয়েছিল বিসিবিকে। এবার ও সেই পথে যাচ্ছে বিসিবি।

এদিকে নাজমুল হাসান পাপন সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, সাকিবকে ক্যাপ্টেন্সি করার জন্য জোর করবনা, এতে তার পারফরম্যান্সের উপর প্রভাব পড়বে। সে যদি নিজে থেকে ছেড়ে দিতে চায় তবে আমি চাইবো মুশফিককে কিন্তু গত দেড় বছরে বাংলাদেশ জিম্বাবুয়ে এবং আফগানিস্তানের মতো দলের সাথে হেরেছে যা হতাশাজনক।

মুশফিক এর আগে একবার বলেছে যে সে আর ক্যাপ্টেন্সি করবেনা, তাহলে আমাদের নতুন একজনকে খুঁজে নিতে হবে যে/যারা আগামী বিশ্বকাপ এবং টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপে নেতৃত্ব দেবে। টেস্টে মাহমুদুল্লাহ যদি স্থায়ী হয়ে যায় তাহলে শুধু ওয়ানডে নেতৃত্ব নিয়ে চিন্তা করব আমরা।”

এদিকে ওপেনিংয়ে তামিম ইকবাল না থাকায় লিটন-সৌম্যেরই ওপেন করার সম্ভাবনা প্রবল। আর তিন নম্বরে খেলবেন সাকিব আল হাসান৷ মিডল অর্ডারে মুশফিক-রিয়াদের সঙ্গে ফিনিশিংয়ের দায়িত্বটা হয়তো থাকবে সাব্বির-মোসাদ্দেকের হাতে। স্পিন বিভাগে সাকিবের সাথে হয়তো থাকবেন মেহেদি। আর মোস্তাফিজের সাথে পেসের দায়িত্ব হয়তো সামলাবেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন।

এই পরিকল্পনায় রিয়াদের ফর্মে না থাকাতে বেশ চিন্তিত দলের একাংশ। সাকিব-রিয়াদ দ্বন্দ সেই বিশ্বকাপ থেকেই শুরু হয়ে এখনও তা বর্তমান। সাব্বির রহমান ও মুশফিক রহিম নিজেকে হারিয়ে খুঁজতে চেষ্টা করছে। রহিম নিজের কিপিং দিয়ে হতাশ করেছে ভক্তদের।

নতুন কাউকেও সে কিপিং এর সুযোগ দিচ্ছে না। রহিম হয়ত ভুলে গেছে ২০০৭ সালে তিনি খালেদ মাসুদ পাইলকে সরিয়ে দলে জায়গা করে নিয়েছিল। এখন তার থেকেও অন্য কেউ ভালো কিপিং করলে রহিমের উচিত তাকে তার স্থান করে দেওয়া।

পরিশেষে আজ ম্যাচ শেষেই বোঝা যাবে, টাইগার ইজ ব্যাক না টাইগার ইজ গন।

বাংলাদেশের সম্ভাব্য একাদশ : লিটন দাস, সৌম্য সরকার, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ, সাব্বির রহমান, মোসাদ্দেক হোসেন, মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন, তাইজুল ইসলাম, মেহেদি হাসান, মোস্তাফিজুর রহমান।

স/এষ্

Print Friendly, PDF & Email