যেসব বিষয়ে ক্রেতারা প্রভাবিত হন

নিউজ ডেস্ক: ফোন কেনার ক্ষেত্রে কী কী বিষয়ের উপর জোর দেওয়া উচিত তা অনেকেই বুঝতে পারেন না।

তাই ভরসা করেন বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া পেইজ ও প্রযুক্তি বিষয়ক সাইটের উপর। তবে অনলাইনে কোনো তথ্য দেখে চোখ বন্ধ করে তাতে ভরসা করা যাবে না।ফোনের ব্যাপারে অনলাইনে খোঁজ খবর নেওয়ার সময় কোন কোন বিষয় মাথায় রাখতে হবে সেটাই এখানে জানানো হলো।সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টইনস্টাগ্রামে অনেক তারকার হাতেই নিত্য নতুন ফোন দেখা যায়।

মোটেও ধরে নেবেন না যে তারা ফোনটি ব্যবহার করে রিভিউ দিচ্ছে। এই রিভিউ পেইড। ফোন নির্মাতা কোম্পানিগুলোর তারকাদের টাকা দেয়।

এ কারণেই তারা ফোনের ব্যাপারে ভালো ভালো কথা বলেন। তাই ওমুক তারকার তমুক ফোন আছে। আমাকেও কিনতে হবে- এই ধারণা থেকে বের হতে হবে।ই-কমার্স সাইটের রিভিউই-কমার্স সাইটে থাকা সব রিভিউ যে ক্রেতারাই দেন তা নয়।

অনেক সময় নেগেটিভ রিভিউ বেশি পড়লে পেইড রিভিউও পোস্ট করা হয়।ফোনের মার্কেট শেয়ারমার্কেট শেয়ার বা শিপমেন্টের তথ্য দেখে ফোন না কেনাই ভালো। সব সময় মনে রাখতে হবে, দামে সস্তা ফোনগুলোই বাজারে বেশি বিক্রি হয়। আর সস্তা ফোনের কোনো না কোন দুর্বল দিক থাকেই। তাই সবার হাতে হাতে যে ফোন থাকবে সেটাই ভালো ফোন এমন ধারণা ভিত্তিহীন।
ফিচার

একটি ফোনের সব ফিচার ভালো হবে না। তবে শুধু একটি-দুটি ফিচার বাদে বাকি সব ফিচার দুর্বল হবে এমনটাও কাম্য নয়।

ফোনের ক্যামেরার মান যেমনই হোক প্রসেসর, র‍্যাম ও ব্যাটারির শক্তি কম হলে ভোগান্তির শেষ থাকবে না।ফ্ল্যাশসেলমাঝে মাঝে হাইপ তৈরি করতে ফ্ল্যাশ সেলের আয়োজন করে ফোন কোম্পানিগুলো।

নির্দিষ্ট তারিখে দিনের একটি সময় কম দামে নতুন ফোন বিক্রির প্রথাই ফ্ল্যাশ সেল নামে পরিচিত। ফ্ল্যাশসেলে ১০ বা ১ হাজার ইউনিট ফোনও বিক্রি হতে পারে। তাই ফ্ল্যাশসেলে বিক্রি হচ্ছে মানেই বাজারে এর তীব্র চাহিদা রয়েছে তা নয়।

দামিফোন কোম্পানিগুলো অনেক সময়ই দাবি করে, তাদের ফোন পানি নিরোধী। অর্থাৎ পানিতে পড়লেও ফোনের কিছু হবে না। তবে এই দাবি সর্বক্ষেত্রে খাটবে না। ফোন সমুদ্রের পানিতে পরা আর বালতির পানিতে পরা এক বিষয় নয়।

তাই কতোক্ষণ পর্যন্ত ফোনটি পানি সহ্য করতে পারে বা কতখানি পানিতে পড়লেও ফোনটি সচল থাকবে তা নিজে নিজে পরীক্ষা করতে না যাওয়াই ভালো।

 

স/এন

Print Friendly, PDF & Email