উত্তরখানে প্রেমের ঘটনা-মিথ্যা অপরহণ মামলা দিয়ে নিরিহ মানুষকে হয়রানী

যুগল পারভেজ ও আন্নি

আতা পরিবারের বিচার দাবি

নিজস্ব প্রতিনিধি : একটি প্রেমের ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তরখান এলাকায় তোলপার সৃষ্টি হয়েছে। প্রেম করে আতাউর রহমান ওরফে আতার মেয়ে আবিদা রহমান আন্নি ময়নারটেক উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর ছাত্রী। সে একই এলাকার ১ম বর্ষের ছাত্র পারভেজ এর সাথে প্রেম করে গত ১লা মার্চ বাড়ি থেকে পালিয়ে গিয়ে বরিশালে এক মৌলবির মাধ্যমে বিবাহ সূত্রে আবদ্ধ হয় বলে এলাকাবাসি জানান। এ ঘটনাটি তারা গোপন রাখে এবং বাড়ি ফিরে আসে। আতা মিয়ার এই প্রেমিকা কন্যা ইতে পূর্বে প্রেমের টানে চারবার বাড়ি ছেড়েছে। কয়েকবার থানা পুলিশকে গলদঘর্ম হয়ে ছুটতে হয়েছে। ইতি পূর্বে উত্তর খান থানার ওসি মোঃ হেলাল উদ্দিন নিজে উদ্যোগ নিয়ে মেয়েটিকে তার বাবা আতাউর রহমান ওরফে আতা মিয়া এবং মা পারভিন এর কাছে উদ্ধার করে ফিরিয়ে দেন। সর্বশেষ গত ১লা মার্চ মেয়েটি নিজেই পারভেজ এর সাথে ঢাকার বাইরে পাড়ি জমায়। এতে এলাকায় আলোড়ন সৃষ্টি হয়।
ঘটনার এখানে শেষ নয়, এ বিষয়টিকে কেন্দ্র করে আতা মিয়া ও তার স্ত্রী পারভিন উদুর পিন্ডি বুদুর ঘারে চাপানোর জন্য এলাকার নিড়িহ বেশ কিছু লোকের নামে ও অজ্ঞাত নামা তথাকথিত কয়েজনের নামে মিথ্যা অপহরণ মামলা নং-৪, তাং-০৪-০৩-২০১৮ইং দিয়ে নজির বিহীন হয়রানি করছেন। এতে করে এলাকায় শান্তি শৃঙ্খলা বিনষ্টের আশংকা দেখা দিয়েছে। এই মামলায় পারভেজ ও আন্নির প্রেমের ঘটনা ঘটলেও আতা মিয়া এলাকার বাশার, পারভিন, ফজল, কাউসারসহ অজ্ঞাত নামা কয়েকজনের নাম দেওয়ায় এলাকায় তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এলাকাবাসি জানান আতা মিয়ার পরিবার একটি নগ্ন প্রেমের পরিবার। এই আতা মিয়া নিজ ভাতিজিকে অর্থাৎ আন্নির মা পারভিনকে প্রেমে করে বিয়ে করেছিল। উক্ত মহিলার আরো কয়েকটি বিবাহ হয়ে ছিল। সে মহিলার ঘরের সন্তান আন্নি, এখন ফ্রি স্টাইলে প্রেম করে যাচ্ছে। বিপাকে পড়ছে এলাকাবাসি, বিভ্রান্ত হচ্ছে ও কষ্ট করছে থানা পুলিশ, ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে নিরিহ মানুষ। তারা এ প্রেমের ঘটনাকে অপহরণের মিথ্যা মামলা দেয়ায় আতা মিয়ার পরিবারের বিচার দাবি করেছেন ও সুষ্ঠু তদন্ত দাবী করছেন।

www.linkhaat.com

স/এষ্

700
Print Friendly, PDF & Email