ঢাকাশুক্রবার , ১৯ আগস্ট ২০২২
  1. Bangla
  2. chomoknews
  3. English
  4. অপরাধ
  5. অভিনন্দন
  6. আমাদের তথ্য
  7. কবিতা
  8. কর্পরেট
  9. কাব্য বিলাস
  10. কৃষি সংবাদ
  11. খুলনা
  12. খোলামত
  13. গল্প
  14. গাইড
  15. গ্রামবাংলার খবর
আজকের সর্বশেষ

আটপাড়ায় মেডিকেল এ্যাসিস্ট্যান্টের ভুল চিকিৎসায় মুক্তিযোদ্ধা সন্তান পঙ্গুর্তের পথে

চমক নিউজ, ময়মানসিংহ
আগস্ট ১৯, ২০২২ ২:০৪ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

আটপাড়ায় মেডিকেল এ্যাসিস্ট্যান্টের ভুল চিকিৎসায়
মুক্তিযোদ্ধা সন্তান পঙ্গুর্তের পথে

আটপাড়া (নেত্রকোণা) থেকে মো: আসাদুজ্জামান খান সোহাগ-নেত্রকোণার আটপাড়া হাসপাতালে কর্মরত মেডিকেল এ্যাসিস্ট্যান্ট ইকবাল কোরাইশী দীর্ঘ প্রায় ১০ বৎসর যাবৎ একই হাসপাতালে কর্মরত আছেন।

অনুসন্ধানে জানা যায়, তিনি একই স্থানে দীর্ঘদিন কর্মরত থাকার ফলে এলাকার বিভিন্ন প্রভাবশালী ব্যক্তির সাথে সম্পর্ক তৈরী হওয়ার কারণে জরুরী বিভাগে চিকিৎসা নিতে আসা অসহায় রোগীদের নিকট চিকিৎসা ব্যবহৃত সুই, সুতা, ভায়োডিন ও গজ সরকারি ভাবে বরাদ্দ থাকলেও তাহা মজুদ নাই বলে জানান।

অসহায় রোগীরা আর্থিক সুবিধা দিলে সরকারি ভাবে বরাদ্দকৃত ঐ সব সামগ্রী তিনি বের করে চিকিৎসা শুরু করেন। তিনি মেডিকেল এ্যাসিস্ট্যান্ট হয়েও বিভিন্ন ঔষধ কোম্পানীর প্রতিনিধির জোগসাজশে বিভিন্ন উচ্চ মাত্রার এন্ট্রিবায়োটিক ও ইনজেকশন রোগীদের শরীরে পুশ করার অভিযোগ রয়েছে। জরুরী বিভাগে চিকিৎসা নিতে আসা বিভিন্ন রোগীদের সাথে কথা বললে তারা জানান, অভিযুক্ত ইকবাল কোরাইশী তাদের সাথে অসদাচরণের অভিযোগ পাওয়া যায়।

অভিযোগ সূত্র জানা যায়, গত কিছুদিন পূর্বে আটপাড়া উপজেলার বাশাটি গ্রামের বাসিন্দা ভূক্তভোগী মুক্তিযোদ্ধার সন্তান মো: আনোয়ার হোসেন শফি তার হাঁটুর সমস্যা জনিত কারণে জরুরী বিভাগে চিকিৎসা নিতে আসলে অভিযুক্ত মেডিকেল এ্যাসিস্ট্যান্ট তার ভুল চিকিৎসা ফলে রোগীর অবস্থা আরো গুরুত্বর অবনতি হয়। পরবর্তীতে আটপাড়া হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন এবং ময়মনসিংহ মেডিকেলে চিকিৎসাধীন আছেন। তিনি আরো বলেন, এ ধরণের ভুল চিকিৎসার জন্য যে কোন ব্যক্তির জীবন নষ্ট হতে পারে। তাই তার বিরুদ্ধে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বরাবরে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য দাবী জানাই।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত ইকবাল কোরাইশীর সাথে যোগযোগ করলে তিনি জানান, আমি রোগীর প্রাথমিক চিকিৎসা করলেও পরবর্তীতে তিনি আমার সাথে যোগাযোগ করেন নি।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা: মো: শরীফ আহমেদ জানান, আমি অভিযোগের বিষয়ে অবগত হয়েছি। সিভিল সার্জন স্যার বিষয়টি তদন্ত করছেন। জেলা সিভিল সার্জন ডা: সেলিম মিয়া জানান, এ ব্যাপারে অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

স/বি